রাতে ব্লাড ব্যাংক বন্ধ, রোগীদের ভোগান্তি বাড়ছে ফালাকাটায়

243

সুভাষ বর্মন, ফালাকাটা : ফালাকাটা সুপারস্পেশালিটি হাসপাতালে রাতে ব্লাড ব্যাংক বন্ধ থাকায় রোগীদের ভোগান্তি বাড়ছে। বিশেষ করে বেসরকারি হাসপাতালের রোগীদের রক্তের প্রয়োজন হলে মাঝরাতে পরিজনদের আলিপুরদুয়ার বা কোচবিহারে যেতে হচ্ছে। এমনকি রাতে সুপারস্পেশালিটি হাসপাতালে ভর্তি রোগীদের রক্তের প্রয়োজন হলে সুপারের বিশেষ অনুমতি পেতে পরিজনদের নাজেহাল হতে হয় বলে অভিয়োগ। এজন্য নানা মহল থেকে সুপারস্পেশালিটি হাসপাতালে ২৪ ঘণ্টা ধরে ব্লাড ব্যাংক চালুর দাবি উঠেছে। আলিপুরদুয়ারের ডেপুটি সিএমওএইচ-২ সুবর্ণ গোস্বামী বলেন, পর্যাপ্ত টেকনিশিয়ান পেলেই ২৪ ঘণ্টা ব্লাড ব্যাংক চালু রাখা সম্ভব। আমরাও উপরমহলে এই দাবি জানিয়েছি।

২০১৮ সালে ফালাকাটা গ্রামীণ হাসপাতালের পাশেই সুপারস্পেশালিটি হাসপাতালের ভবন গড়ে ওঠে। আউটডোরের পর ইন্ডোর সহ নানা পরিষেবা এখানে চালু হয়। শহর সহ ফালাকাটা ব্লকের ১২টি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকা এবং পাশের আলিপুরদুয়ার-১, মাথাভাঙ্গা ও মাদারিহাট-বীরপাড়া ব্লকের বাসিন্দাদের একাংশ চিকিৎসার জন্য ফালাকাটার উপর নির্ভর করেন। তাই রক্তের সংকট মেটাতে গত বছরের ১ মে এখানে ব্লাড ব্যাংক চালু হয়। প্রথমদিকে সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৪টা এবং বর্তমানে রাত ৮টা পর‌্যন্ত ব্লাড ব্যাংক চালু রাখা হচ্ছে। কিন্তু তারপর গোটা রাত ব্লাড ব্যাংক বন্ধ থাকায় রোগী ও পরিজনদের সমস্যা হচ্ছে। এক্ষেত্রে বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি রোগীদের বেশি ভোগান্তি হচ্ছে। সম্প্রতি ফালাকাটার একটি বেসরকারি হাসপাতালে বীরপাড়া কলেজপাড়ার বাসিন্দা গীতা রায়ের টিউমার অপারেশন হয়। রাতের দিকে তাঁর রক্তের প্রয়োজন হয়। অনেক চেষ্টা করেও রোগীর পরিজনরা ফালাকাটা সুপারস্পেশালিটি হাসপাতালের ব্লাড ব্যাংক থেকে রক্ত পাননি। রোগীর নিকট আত্মীয় ফালাকাটার সৌগত তালুকদার বলেন, রক্তের জন্য বাধ্য হযে মাঝরাতে আলিপুরদুয়ার জেলা হাসপাতালে যেতে হয়। এজন্য তিনি ফালাকাটায় রাতে ব্লাড ব্যাংক চালুর দাবি জানিয়েছেন। আরেক রোগী কলাবাড়িয়া গ্রামের সুগত রায় সম্প্রতি রক্তের জন্য সকাল ৯টায় ব্লাড ব্যাংকে চলে আসেন। এজন্য তাঁকে অনেক সময় অপেক্ষা করতে হয়। তিনি বলেন, সকাল ৯টায় এসে দেখি ব্লাড ব্যাংকে কোনও স্টাফ নেই। অথচ নিয়মে বলা রয়েছে ৯টা থেকে ব্লাড ব্যাংক খোলা থাকবে। তাঁর দাবি, স্টাফরা সেদিন ১০টার পর আসেন। পরে অবশ্য তিনি ও পজিটিভ রক্ত পেয়ে যান। রাতের দিকে হাসপাতালে ভর্তি রোগীদেরও সমস্যা হচ্ছে। রোগীর এক পরিজন বলেন, রাতে ব্লাড ব্যাংক বন্ধ থাকলেও হাসপাতালে ভর্তি রোগীদের প্রয়োজন হলে রক্ত দেওয়ার নিয়ম রয়েছে। কিন্তু সেজন্য দরকার হয় হাসপাতাল সুপারের বিশেষ অনুমতি। আর সেই অনুমতি পেতেও নাজেহাল হতে হয়।

- Advertisement -

এই পরিস্থিতিতে দিনরাত ব্লাড ব্যাংক চালুর দাবি উঠেছে। ব্লাড ডোনার অর্গানাইজেশন-এর ফালাকাটার কোঅর্ডিনেটর অরিন্দম বিশ্বাস বলেন, ফালাকাটায় ব্লাড ব্যাংক চালু হওয়ায় অনেক সাধারণ মানুষ উপকৃত হচ্ছেন। তবে রাতের পরিস্থিতি বিবেচনা করে ২৪ ঘণ্টা সেটি চালু থাকলে ভালো হয়। নর্থবেঙ্গল সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সংস্থার কর্ণধার নারায়ণ বিশ্বাস বলেন, রাতে রক্তের প্রয়োজন হলে রোগীর পরিজনদের নাভিশ্বাস ওঠে। তাঁদের আলিপুরদুয়ার বা কোচবিহার যেতে হয়। এজন্য রাতেও ব্লাড ব্যাংক খোলা রাখা প্রয়োজন। ফালাকাটা সুপারস্পেশালিটি হাসপাতালের সুপার বর্তমানে ছুটিতে রয়েছেন। ডেপুটি সিএমওএইচ-২ সুবর্ণ গোস্বামী বলেন, টেকনিশিয়ান কম থাকায় রাতে ব্লাড ব্যাংক চালু রাখা সম্ভব হচ্ছে না।