ডবল ডেকার বাস পরিষেবা চালুর দাবি মেখলিগঞ্জে

266

মেখলিগঞ্জ: কোচবিহার থেকে মেখলিগঞ্জ হয়ে হলদিবাড়ি পর্যন্ত রুটে ডবল ডেকার বাস পরিষেবা চালুর দাবি উঠল। কোচবিহার জেলার সীমান্ত শহর মেখলিগঞ্জ। আর মেখলিগঞ্জ ব্লকে রয়েছে মেখলিগঞ্জ মদনমোহনবাড়ি মন্দির, ঐতিহ্যবাহী পদ্ম পুকুর, তিনবিঘা করিডর সহ রাজ আমলের একাধিক নিদর্শন। এর মধ্যে কিছু কিছু নিদর্শন বর্তমানে সংস্কারের অভাবে ধুঁকছে। অন্যদিকে, মহকুমার দ্বিতীয় ব্লক হলদিবাড়িতে প্রধান আকর্ষণ হিসেবে রয়েছে হুজুর সাহেবের মাজার, প্রায় ৪০০ বছরের পুরোনো কাশিয়াবাড়ি কালীবাড়ি ইত্যাদি। মহকুমার দুই ব্লকের এই সমস্ত জায়গায় প্রচুর পর্যটক বছরের বিভিন্ন সময়ে ঘুরতে আসেন। হলদিবাড়ি হুজুর সাহেবের মেলায় লক্ষাধিক মানুষ জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে ভিড় জমান। ফলে কোচবিহার থেকে মেখলিগঞ্জ হয়ে হলদিবাড়ি পর্যন্ত ডবল ডেকার বাস পরিষেবা চালু করলে বাইরের পর্যটকদের আরও বেশি পরিমাণে আকৃষ্ট করা যাবে বলেই ধারণা অনেকেরই।

মেখলিগঞ্জের বাসিন্দা কুণাল নন্দী বলেন, ‘কোচবিহার থেকে মেখলিগঞ্জ হয়ে হলদিবাড়ি পর্যন্ত ডবল ডেকার বাস পরিষেবা চালু হলে সেখানকার পর্যটনের দিক দিয়ে এক অন্য মাত্রা পাবে। বেশি পরিমাণে পর্যটক মেখলিগঞ্জে আসার ফলে এনবিএসটিসির পাশাপাশি মেখলিগঞ্জও অর্থনৈতিক দিক থেকে সমৃদ্ধ হবে।’ মেখলিগঞ্জ ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি বিষ্ণু পদ ঘোষ বলেন, ‘কোচবিহার থেকে মেখলিগঞ্জ ডবল ডেকার বাস পরিষেবা চালু হলে বাইরের পর্যটকরা এখানে আসবেন। এতে মেখলিগঞ্জের ব্যবসায়ীরা লাভবান হবেন। মেখলিগঞ্জে পর্যটনশিল্প নতুন মাত্রা পাবে।’

- Advertisement -

মেখলিগঞ্জের বিধায়ক তথা রাজ্যের স্কুল শিক্ষা দপ্তরের প্রতিমন্ত্রী পরেশচন্দ্র অধিকারী বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে উত্তরবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহণ নিগমের চেয়ারম্যান পার্থপ্রতিম রায়ের সঙ্গে কথা বলব।’ এনিয়ে পার্থপ্রতিম রায় বলেন, ‘কোচবিহার থেকে চালানো যাবে না। সম্ভব না। শর্ট রুট করতে হবে। মেখলিগঞ্জ থেকে হলদিবাড়ির মধ্যে হতে পারে। চিন্তা ভাবনা করে আমি দেখে নিচ্ছি সবটা।’