সস্তার গুটখা তৈরিতে চাগুয়ার চাহিদা বাড়ছে

4857

সপ্তর্ষি সরকার, ধূপগুড়ি : তামাকজাত পানমশলা বিক্রিতে আইনি কড়াকড়ি আনা হলেও নতুন কায়দায় এখনও বাজারে ছেয়ে রয়েছে সাবেক গুটখা ব্র‌্যান্ডগুলি। একের বদলে দুটি প্যাকেটে বাজারে হাজির হচ্ছে এই নেশার সামগ্রী। একটি প্যাকেটে থাকছে চুন, খয়ের মেশানো সুপারি। আরেকটি ছোট প্যাকেটে থাকছে জর্দা। দুটো প্যাকেট মিশিয়ে মুখে পুরলেই পরিচিত গুটখার আমেজ মিলছে। এতে উৎপাদন খরচ অনেকটা বেড়েছে। তাই খরচের সঙ্গে পাল্লা দিতে চাগুয়ার চাহিদা বেড়েছে। উত্তর ভারতের বেশ কয়েকটি রাজ্যের গুটখা তথা পানমশলা ফ্যাক্টরিগুলিতে জলপাইগুড়ি ও আলিপুরদুয়ার জেলা থেকে সুপারির পাশাপাশি ব্যাপক হারে চাগুয়া রপ্তানি হচ্ছে।

কাঠগুয়া, চৈ সুপারি, চাক সুপারি বা কাঠ সুপারি, চাগুয়া ইত্যাদি নামে পরিচিত এই ফলগুলিকে শুকিয়ে নিয়ে টুকরো করলে ভেতরের দানা দেখতে এবং খেতে প্রায় সুপারির মতোই। প্রসেসড সুপারির তুলনায় দাম অনেক কম হওয়ায় সস্তার গুটখা তৈরিতে এর চাহিদা বেশি। ফিসটেইল পাম বা বড় তালগাছের মতো দেখতে চাগুয়া গাছ থেকে বছরে অন্তত দুবার সাতশো থেকে হাজার কেজি পর‌্যন্ত ফল মেলে। ধূপগুড়ির বাসিন্দা সফিকুল ইসলামের বেশ কযেটি চাগুয়া গাছ রযেে। তিনি বলেন, সাধারণত চাগুয়ার ফল পড়ে নষ্ট হয়ে যায়। তাই কম দরে বিক্রি করে দিই। বিভিন্ন এলাকা ঘুরে ব্যবসায়ীরা ফল সংগ্রহ করেন। কাঁচা ফল থেকে যে রস বের হয় তা থেকে চুলকানি হয় বলে কিনে আনা চাগুয়া প্রথমে ডাঁই করে ফেলে রাখা হয়। ফল শুকিয়ে গেলে গাড়ির চাকায় পিষে দানা বের করা হয়। এরপর এগুলিকে সুপারির মতো রং করে শুকিয়ে বস্তা বোঝাই করে ৩০-৩৫ টাকা কেজি দরে রপ্তানি করা হয়। অথচ এই কায়দায় কাঁচা সুপারি সেদ্ধ করে, শুকিয়ে রং করে যে টিপনি সুপারি তৈরি হয় তার দাম পড়ে কেজি প্রতি ৩০০-৩৫০ টাকা। ব্যবসাযীরা জানিযেেন, এই টিপনি সুপারি মূলত গুটখা এবং পানমশলা তৈরিতে লাগে। খুচরো দোকানে পাঁচ টাকায় যে দুপ্যাকেট  গুটখা ও জর্দা বিক্রি হয় তা দোকানদাররা কেনেন মোটামুটি সাড়ে তিন টাকায়। এছাড়া, বিভিন্ন খরচ জুড়লে এক প্যাকেট গুটখা তৈরি করতে এক থেকে দেড় টাকা খরচ করা সম্ভব। ফলে সস্তার গুটখা বানাতে ৩০০ টাকার বেশি দামের টিপনি সুপারি ব্যবহার করলে তা পাঁচ টাকায় বিক্রি করা সম্ভব নয়। এসব কারণেই সুপারির থেকে চাগুয়ার চাহিদা বেশি। তবে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, এতে ক্ষতি বাড়ছে বই কমছে না। ক্যানসার বিশেষজ্ঞ ডাঃ নির্মাল্য ঘোষ বলেন, এমনিতে জর্দা, সুপারি থেকে মুখের ক্যানসার হয়ে থাকে। গুটখায় চুন, সুপারি, খয়েরের পাশাপাশি কাচের গুঁড়ো থাকেযা জিভ ও মুখের ভেতরের কিছুটা ঘষে দেয় আর সেখানে নিকোটিন লাগলে ঝাঁঝালো নেশার আমেজ দেয়। এতে ক্যানসারের সম্ভাবনা বাড়ে। চাগুয়ায় ক্ষতির সম্ভাবনাও বাড়ে। তবে চিকিৎসকরা যতই সতর্ক করুন, এই সস্তার পানমশলা গুটখার বিক্রি যেমন বাড়ছে তেমনিই পাল্লা দিযে বাড়ছে চাগুয়ার খোঁজ ও জোগান।

- Advertisement -