মালঞ্চা হল্টে স্টপেজ তুলে দেওয়ায় প্রতিবাদ

93

তপন, ১৮ জুলাইঃ স্টপেজ তুলে দেওয়ার প্রতিবাদে স্টেশন চত্বরে অবস্থান বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করল রেল স্টেশন উন্নয়ন কমিটি। করতালির মধ্য দিয়ে রেল বিদায় জানানো হয়। ঘটনায় ব্যপক চাঞ্চল্য ছড়ায় তপন থানার মালঞ্চা রেল শ্টেশন। একলাখি বালুরঘাট রেল সম্প্রসারনের মধ্য দিয়ে ২০০৪ সালে এই জেলায় রেল পরিষেবা চালু হয়েছিল। রেল পরিষেবা চালুর শুরু থেকে যে কয়েকটি রেল স্টপেজ ছিল, তার মধ্যে তপনের মালঞ্চা হল্ট স্টেশনটি অন্যতম।

গৌড় লিংক ও শিলিগুড়ি ইন্টার এক্সপ্রেস ট্রেনটি দাড়ানোর ফলে তপনের হজরতপুর, মালঞ্চা, নিশ্চিন্তা, কমলপুর, কড়াই চ্যাঁচড়ার পাশাপাশি গঙ্গারামপুর ব্লকের ফুলবাড়ি, বুড়িদিঘি, আশ্রম, উদয়, নাকৈড়, পালশা, আউশা, পৈতাদিঘি সহ কুমারগঞ্জ ব্লকের বেশ কয়েকটি এলাকার মানুষজন মালঞ্চা স্টেশন থেকে ট্রেনে চেপে বিভিন্ন জায়গায় পাড়ি জমাতেন।

- Advertisement -

কিন্তু, গত কয়েকদিন ধরে মালঞ্চা হল্ট স্টেশন স্টপেজ তুলে দেওয়ায়, কোনও ট্রেন দাঁড়াচ্ছে না। এরই প্রতিবাদে রবিবার বিকেলে দলমত নির্বিশেষ মালঞ্চা স্টেশন উন্নয়ন কমিটি প্রতিবাদ সভা করেন। সেই সাথে গণস্বাক্ষর সংগ্রহ করা হয়। মালঞ্চা স্টেশনে ট্রেন পৌঁছালে, বিক্ষোভকারীরা স্টেশনের দুইপাশে দাড়িয়ে করতালির মাধ্যমে ট্রেনটিকে স্টেশন থেকে বিদায় জানান।

মালঞ্চা রেল স্টেশন উন্নয়ন কমিটি অন্যতম কর্মকর্তা গোপাল চৌধূরী বলেন, আমাদের জেলায় রেল চালুর শুরু থেকে মালঞ্চা হল্ট স্টেশন ছিল। কিন্তু, গত ১৫ দিন ধরে আমাদের মালঞ্চা স্টেশনে কোনও ট্রেন দাড়াচ্ছে না। আমরা জানতে পেরেছি মালঞ্চা স্টপেজটি তুলে দেওয়া হয়েছে। সন্ধ্যার পর স্টেশন চত্বরে অসামাজিক কার্যকলাপ হচ্ছে। সেই জন্য আমরা চাইছি পুণরায় টিকিট কাউন্টার চালু করে মালঞ্চা স্টেশনে ট্রেন দাড়ানোর ব্যবস্থা করা হোক।

হজরতপুর গ্রামের বাসিন্দা হাসেন সরকার বলেন, ট্রেন চালুর শুরু থেকে আমাদের মালঞ্চা স্টেশন ছিল। কিন্তু, ১৫ দিন ধরে আমাদের এখানে ট্রেন দাড়াচ্ছে না। এর ফলে আমাদের চরম সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। তিনি বলেন, বিষয়টি আমরা রেলের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠাচ্ছি। পুণরায় যেন আমাদের এখানে ট্রেন দাড়ায়। আরএসপি নেতা আবদুর জব্বার মণ্ডল বলেন, মালঞ্চা স্টেশন থেকে আমাদের এলাকার বহু ছাত্র-ছাত্রী ট্রেন চেপে লেখাপড়ার জন্য নানা জায়গায় যান। বহু রোগীদের চিকিৎসার জন্য ট্রেনে করে বাইরের রাজ্যে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু, হঠাৎ করে মালঞ্চা স্টেশনে স্টপেজ তুলে দেওয়ায় আমরা ভীষণ সমস্যায় পড়ছি।

কংগ্রেস নেতা সাদেক সরকার বলেন, দিনকে দিন স্টপেজের সংখ্যা বাড়ার কথা। কিন্তু, সেটা না হয়ে উলটে, স্টপেজ তুলে দেওয়া হচ্ছে। আমরা চাই পুণরায় মালঞ্চায় স্টপেজ দেওয়া হোক। বিজেপি নেতা মানস সরকার বলেন, তপন, গঙ্গারামপুর, কুমারগঞ্জের ব্লকের বিভিন্ন এলাকার মানুষ মালঞ্চায় স্টেশন থেকে ওঠানামা করেন। কিন্তু, স্টপেজটি তুলে দেওয়ার ফলে, ৩ ব্লকের মানুষজনকে সমস্যায় পড়তে হবে। তৃণমূল নেতা হায়দার আলি বলেন, কেন স্টপেজ তুলে দেওয়া হল, তা নিয়ে আমরা অন্ধকারে। তিনিও পুনরায় মালঞ্চায় ট্রেনের স্টপেজ তৈরির দাবি করেছেন।