বঞ্চনা-অত্যাচারের সূত্রেই বিচ্ছিন্নতার দাবি, বঙ্গভঙ্গে আপত্তি জানিয়েও স্বীকার দিলীপের

347

পোর্টাল ডেস্ক: উত্তরবঙ্গকে পৃথক রাজ্য করার ক্ষেত্রে দলের আপত্তির কথা জানালেও বঞ্চনার অভিযোগে অনড় রইলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। এদিন উত্তরবঙ্গে সফরে এসে নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশনে নেমে দিলীপ ঘোষ জানান, এখানকার বাসিন্দাদের দীর্ঘদিনের বঞ্চনার অভিযোগ রয়েছে। তাই কখনও আলাদা কামতাপুর রাজ্য, কখনও পৃথক গোর্খাল্যাণ্ডের আওয়াজ উঠেছে। এটা এখানকার বাসিন্দাদের দাবি। তাই জনপ্রতিনিধিরা এলাকার মানুষের কথা জানিয়েছেন। তবে পৃথক রাজ্য গঠনে বিজেপির সায় নেই। এনিয়ে রাজ্য বা কেন্দ্রীয় বিজেপি নেতৃত্ব কিছু ভাবেনি বলেও জানান তিনি। যদিও বিজেপি ছোট রাজ্যেরই পক্ষে তা স্বীকার করে তিনি জানান, অনেক রাজ্য ভেঙে আলাদা রাজ্য হয়েছে। তবে পশ্চিমবঙ্গে এখনও এনিয়ে কোন সিদ্ধান্ত হয়নি।

সম্প্রতি উত্তরবঙ্গকে আলাদা রাজ্য বা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল করার দাবিতে সরব হয়েছেন আলিপুরদুয়ারের বিজেপি সাংসদ জন বার্লা। তাঁর পাশে দাঁড়িয়েছেন উত্তরের একাধিক বিজেপি বিধায়ক। যা নিয়ে চরম অস্বস্তিতে রাজ্য বিজেপি নেতৃত্ব।
এদিকে, গেরুয়া শিবিরের রাজ্য ভাগের ইস্যুকে সামনে রেখে পালটা ময়দানে নেমে পড়েছে শাসক দলের নেতা, কর্মীরা। এই অবস্থায় আজ রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষের তিন দিনের উত্তরবঙ্গ সফর যথেষ্টই তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে। কেননা গতকালই দার্জিলিংয়ের রাজভবনে গিয়ে বিজেপির জোটসঙ্গী সিপিআরএম, এবিজিএল সহ গোর্খা রাষ্ট্রীয় কংগ্রেসের প্রতিনিধিরা পৃথক গোর্খাল্যাণ্ডের পক্ষে সওয়াল করেছেন রাজ্যপালের কাছে।

- Advertisement -

যদিও বিজেপির রাজ্য সভাপতি জানিয়েছেন তাঁর এই সফর মূলত দলীয় সংগঠন আরও মজবুত করার উদ্দেশ্যেই। এছাড়াও সামনেই পুরভোট রয়েছে। ২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনে উত্তরবঙ্গের ৮টির মধ্যে ৭টি লোকসভা আসন জিতে নেয় পদ্ম শিবির। সদ্য সমাপ্ত বিধানসভা নির্বাচনে দক্ষিনে ভরাডুবি হলেও উত্তরে ভালো ফল করেছে দল। ৫৪-র মধ্যে ৩০টি আসন জিতেছে বিজেপি। তবে দলীয় বিধায়কদের ধরে রাখাই এখন চ্যালেঞ্জ দলের কাছে। কেননা মুকুল রায় তৃণমূলে যোগ দেওয়ায় পরেই বেশ কয়েকজন বিজেপি বিধায়কের দল ছাড়ার গুঞ্জন উঠেছে। যদিও দিলীপ ঘোষের দাবি, একজন বিধায়কও দল ছাড়বেন না। যাঁরা ছাড়ার, তাঁরা চলে গিয়েছেন। এতে আবর্জনা মুক্ত হয়েছে দল।

এদিন রাজ্যে ভ্যাকসিনেশন নিয়েও দূর্নীতির অভিযোগ তোলেন দিলীপ। শিলিগুড়ি পুরনিগমে ৩৫০ টাকা করে নিয়ে ভ্যাকসিন দিচ্ছে বলে জানান তিনি। কলকাতায় ভুয়া ভ্যাকসিনেশন কাণ্ডে তৃণমূলের নেতা মন্ত্রীরা জড়িত দাবি করে তিনি জানান, ধরা পড়ে এখন পিঠ বাঁচানোর চেষ্টা চলছে।শিলিগুড়িতেও এরকম দূর্নীতির ঘটনা ঘটতে পারে বলে সতর্ক করেন দিলীপ। জানা গেছে আজই মেখলিগঞ্জে জলপাইগুড়ি জেলা নেতৃত্বের সঙ্গে সাংগঠনিক বৈঠকে যোগ দেওয়ার কথা রয়েছে দিলীপের। আগামী দুদিন ধরে কোচবিহার ও আলিপুরদুয়ারে বৈঠক করবেন তিনি। শিলিগুড়িতেও পুরসভা ভোট নিয়ে সাংগঠনিক বৈঠক করার কথা রয়েছে তাঁর।