রেল গেট বন্ধের প্রতিবাদে রেলপথ আবরোধ করে বিক্ষোভ

215

বর্ধমান: সাধারণের যাতায়াতের বিকল্প কোন ব্যবস্থা না করেই বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে একেরপর এক রেল গেট।এমনই অভিযোগ তুলে রেলগেটের সামনে বসে রেল অবরোধ করলেন গ্রামবাসীরা। রবিবার ঘটনাটি ঘটেছে পূর্ব রেলের হাওড়া-বর্ধমান কর্ড শাখায় মসাগ্রাম ও চাঁচাই স্টেশানের মাঝে ‘৬২সি’ নম্বর রেলগেটে। স্থানীয় মোহনপুর সহ আশপাশের গ্রামের মানুষজন এদিন রেল অবরোধে অংশ নেন। বেলা আনুমানিক ১২ টা নাগাদ শুরু হওয়া অবরোধে আটকে পড়ে ডাউন লোকাল ট্রেন ও একটি মালগাড়ি। পরে রেল পুলিশের আশ্বাসে বেলা সাড়ে ১২টা’র পর অবরোধ তুলে নেন বাসিন্দারা।

রেল অবরোধে অংশ নেওয়া মোহনপুরের বাসিন্দা গোপাল ঘোষ বলেন, পূর্বে বিনা নোটিশে বন্ধ করে দেওয়া হয় মোহনপুর এলাকা হয়ে যাওয়া মসাগ্রাম-বাঁকুড়া বিডিআর লাইনে থাকা ১১৩ নম্বর রেলগেট। তারজন্য চূড়ান্ত সমস্যায় পড়তে হয়েছে এলাকার তিন চারশো ছাত্র-ছাত্রী, সাধারণ মানুষজন এবং এলাকার কৃষকদের।গোপালবাবু জানান, এলাকায় একটি হাই স্কুল, ২-৩ প্রাথমিক বিদ্যালয়, পোস্ট অফিস, আইটিআই কলেজ রয়েছে। বিডিআর লাইনে মোহনপুরের ১১৩ নম্বর রেল গেট বন্ধ করে দেওয়ার জন্য এলাকার বাসিন্দাদের ২-৩ কিলেমিটার পথ ঘুরে গন্তব্যে যেতে হচ্ছে। এখন আবার কোন বিকল্প ব্যবস্থা না করেই রেল দপ্তর হাওড়া-বর্ধমান কর্ড শাখায় মসাগ্রাম ও চাঁচাই স্টেশনের মাঝে থাকা ‘৬২সি’ নম্বর রেলগেট স্থায়ীভাবে বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে তাঁরা জানতে পেরেছেন। রেল অবরোধে সামিল গোপালবাবু সহ অপর বাসিন্দারা বলেন, রেল দপ্তরের এমন সিদ্ধান্তে চুড়ান্ত বিপাকে পড়তে হবে এলাকার চাষি সহ বাসিন্দাদের।তারই প্রতিবাদ জানিয়ে এদিন ওই রেল গেট খোলা রাখার দাবিতে রেল অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখাতে বাধ্য হয়েছেন ।

- Advertisement -

এদিনের রেল অবরোধে মোহনপুর নিবাসী এক ছাত্রী নাসিফা খাতুন সহ এলাকার অনেক ছাত্র-ছাত্রীও অংশ নেন। নাসিফা খাতুন জানিয়েছেন, বিডিআর রেলের ১১৩ নম্বর রেলগেট বন্ধ করে দেওয়ায় এমনিতেই ভোগান্তি তৈরি হয়েছে। এবার রেলদপ্তর কোন নোটিশ ছাড়াই হাওড়া-বর্ধমান কর্ড শাখায় ‘৬২ সি’ নম্বর রেল গেট বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। রেলের এই সিদ্ধান্তে এলাকার ছাত্র-ছাত্রীদের স্কুল কলেজে যাওয়া দুঃসাধ্য হয়ে পড়বে। রেল দপ্তরের এই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানাতে এদিন এলাকার ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে নিয়ে নিজেও রেল অবরোধে অংশ নিয়েছিলেন বলে নাসিফা জানিয়েছেন। অবরোধে অংশ নেওয়া মোহনপুরের বাসিন্দারা বলেন, রেল পুলিশের আধিকারিকরা তাদের দাবির বিষয়টি নিয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণের আশ্বাস দিয়েছেন। সেই কথা মেনে এদিন তাঁরা আবরোধ তুলে নিয়েছেন। তবে রেল কর্তৃপক্ষ দাবি না মানলে বৃহত্তর আন্দোলনে নামবেন বলে গ্রামবাসীরা এদিন হুঁশিয়ারি দিয়ে রেখেছেন।