গৃহবধূকে পাশবিক নির্যাতন, অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের দাবিতে বিক্ষোভ

160

হেমতাবাদ: হেমতাবাদে এক গৃহবধূকে যৌনাঙ্গে রড ঢুকিয়ে অত্যাচারের পাশাপাশি তাঁর পরিবারের তিন সদস্যের ওপর নির্যাতনে অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার না করায় শুক্রবার পুলিশকে আটকে রেখে বিক্ষোভ দেখালেন স্থানীয় বাসিন্দারা। বিক্ষোভকারীরা দড়ি দিয়ে পুলিশকে গাছের সঙ্গে বেঁধে রাখার হুঁশিয়ারি দিতেই হেমতাবাদ থানার আইসি জয়ন্ত রায়ের নেতৃত্বে কমব্যাট ফোর্স, মহিলা র‍্যাফ সহ বিশাল পুলিশবাহিনী ঘটনাস্থলে যায়। এলাকায় তীব্র উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। ঘটনাস্থলে যান ডিএসপি ও এসডিপিও। স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে পরিস্থিতি সামাল দেন জেলা পুলিশের কর্তারা। অভিযোগ, পাশবিক অত্যাচারের ঘটনার পর ৪৮ ঘণ্টা পার হয়ে গেলেও অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার করেনি পুলিশ। উলটে এদিন দুপুরে তদন্তের নামে এক গাড়ি পুলিশ গ্রামে হাজির হয়। দুষ্কৃতীদের গ্রেপ্তার না করায় পুলিশকে ঘিরে চলে বিক্ষোভ। হেমতাবাদ থানার আইসি জয়ন্ত রায় জানান, পুলিশ ঘটনার তদন্ত করতে গেলে স্থানীয় বাসিন্দাদের বাধার মুখে পড়ে। স্থানীয়দের অভিযোগ, এখানে মোটা টাকার লেনদেন হয়েছে। সেই কারণেই তাঁরা বিক্ষোভ দেখিয়েছেন। পুলিশ টাকা খেয়ে বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছে বলেও ক্ষোভ প্রকাশ করেন তাঁরা।

উল্লেখ্য, রবিবার গভীর রাতে হেমতাবাদের নওদাঁ গ্রাম পঞ্চায়েতের অনন্তকোটা গ্রামে সবজি বাগানে ছাগল ঢুকে যাওয়াকে কেন্দ্র করে ভাইপোর স্ত্রীকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপানোর অভিযোগ উঠেছিল কাকাশ্বশুর ও তাঁর দুই ছেলের বিরুদ্ধে। ওই বধূর হাত-পা কেটে যৌনাঙ্গে ঢুকিয়ে দেওয়া হয়েছিল লোহার রড। স্ত্রীকে বাঁচাতে গিয়ে আক্রান্ত হয়েছিলেন স্বামী। তাঁদের দেড় বছরের সন্তানকে পর্যন্ত উঠোনের মধ্যে ছুঁড়ে ফেলা হয়েছিল। ছেলে-বৌমাকে বাঁচাতে গিয়ে জখম হয়েছিলেন শাশুড়ি। অভিযুক্ত কাকাশ্বশুর তাজমুল হক এবং তাঁর দুই ছেলে বর্তমানে পলাতক।

- Advertisement -