টিকিট কাটায় জটিলতা, মুজনাই রেল স্টেশনে স্মারকলিপি বিজেপির

124

রাঙ্গালিবাজনা: লকডাউনের পর ধীরে ধীরে রেল পরিষেবা চালু হলেও টিকিট কাটার নিয়ম ও পদ্ধতিতে বেশ কিছু পরিবর্তন আনা হয়েছে। এক্ষেত্রে অনলাইনে টিকিট বিক্রিকেই মূলত গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি নির্দিষ্ট কিছু রেল স্টেশনের কাউন্টারে যাত্রার আগের দিন মিলছে টিকিট। কিন্তু আলিপুরদুয়ার জেলার মাদারিহাট-বীরপাড়া ব্লকের শিশুবাড়িতে অবস্থিত মুজনাই রেল স্টেশনের কাউন্টারে কোনও টিকিট মিলছে না। সেখান থেকে ট্রেনে চাপতে হলে অনলাইনে কাটা টিকিটের ওপর ভরসা করতে হচ্ছে। আবার গ্রামের সাধারণ মানুষদের অনেকেই ওই পদ্ধতির সঙ্গে সড়গড় হননি। আবার অনেকেরই অ্যানড্রয়েড মোবাইল ফোন নেই। বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে সোমবার মুজনাইয়ের স্টেশন ম্যানেজারের মাধ্যমে আলিপুরদুয়ারের ডিআরএমকে স্মারকলিপি দিল বিজেপির মাদারিহাটের ১৮ নম্বর মণ্ডল কমিটি। মণ্ডলের সহ সভাপতি মনোহর লাখোটিয়া বলেন, ‘স্টেশন রয়েছে। ট্রেন দাঁড়াচ্ছে। অথচ নিয়মের গেরোয় টিকিট সংগ্রহ করতে পারছেন না সাধারণ মানুষ।’

বিজেপির যুব মোর্চার আলিপুরদুয়ার জেলা কমিটির সম্পাদক আমির প্রধান বলেন, ‘আশেপাশের চা বাগান সহ বেশ কয়েকটি গ্রামের বাসিন্দারা আলিপুরদুয়ার ও শিলিগুড়ি যাওয়ার জন্য মুজনাই রেল স্টেশনের ওপর নির্ভর করেন। কিন্তু টিকিট সংগ্রহ করতে তাঁদের একদিন আগে বীরপাড়া ছুটে যেতে হচ্ছে কারণ অনেকেরই অ্যানড্রয়েড মোবাইল ফোন নেই। অনেকেই আবার অ্যানড্রয়েড মোবাইল ফোনে টিকিট  কাটতে পারেন না।‘

- Advertisement -

মুজনাই রেল স্টেশনের ম্যানেজার নিতাই সরকার বলেন, ‘মুজনাই রেল স্টেশনে ইউটিএস সিস্টেম রয়েছে। ওই সিস্টেমে এখন টিকিট পাওয়া যাচ্ছে না। তবে অনলাইনে টিকিট পাওয়া যাচ্ছে। কিন্তু বীরপাড়ার দলগাঁও রেলস্টেশনে পিআরএস সিস্টেম থাকায় সেখানে একদিন আগেই টিকিট মিলছে। স্মারকলিপিটি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো হয়েছে।‘ এদিকে বিজেপির স্মারকলিপি দেওয়াকে কটাক্ষ করেছে তৃণমূল। চা বাগান তৃণমূল কংগ্রেস মজদুর ইউনিয়নের সদস্য উত্তম সাহা বলেন, ‘পুরোটাই সাজানো নাটক। ভোটের আগে নাটক শুরু করেছে বিজেপি।‘ তরাই ডুয়ার্স প্ল্যানটেশন ওয়ার্কাস ইউনিয়নের সভাপতি নকুল সোনার বলেন, ‘রেল মন্ত্রক বিজেপির হাতে রয়েছে। যে পরিস্থিতিতে অনলাইনে টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছিল তা এখন আর নেই। তাই নাটক না করে মাদারিহাটের বিজেপি বিধায়ক মনোজ ও আলিপুরদুয়ারের বিজেপি সাংসদ কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করে টিকিট কাটার পদ্ধতি সরল করলে আমরা কৃতজ্ঞ থাকব।‘