আবেদন জানিয়েও মেলেনি রূপশ্রীর টাকা, বিডিও-র দ্বারস্থ দুই পরিবার

203

মেখলিগঞ্জ: দুয়ারে সরকারের মাধ্যমে রূপশ্রী প্রকল্পে আবেদনের ৬ মাস বাদেও মেলেনি টাকা। এমনই অভিযোগ মেখলিগঞ্জের কুচলিবাড়ির বাসিন্দা ললিত রায় ও অনিল রায়ের। ঘটনা প্রসঙ্গে ব্লক প্রশাসনের তরফে স্পষ্ট করা হয়েছে রূপশ্রী প্রকল্পে কোনও আবেদন জমা পড়েনি। যে রিসিভ কপি দেখানো হচ্ছে তা ভুয়ো।

জানা গিয়েছে, কুচলিবাড়ির উপনচৌকি হাইস্কুলে দুয়ারে সরকারের শিবির বসেছিল সম্প্রতি। সেখানেই রূপশ্রী প্রকল্পের আবেদন করেন শম্পা রায় এবং জবা রায়। অভিযোগ, আবেদনের পর ৬ মাস পেরিয়ে যাওয়ার পরেও কোনও টাকা পাননি তাঁরা। এরপর বিষয়টি ব্লক প্রশাসনের নজরে আনা হলে সেখান থেকে জানানো হয় কোনও আবেদন জমা পড়েনি। তাঁদের কাছে যে রিসিভ কপি রয়েছে তা ভুয়ো। ঘটনা প্রসঙ্গে শম্পা রায়ের বাবা  ললিত রায় বলেন, ‘বিডিও অফিসের কথা মতো কুচলিবাড়িতে দুয়ারের সরকারের মাধ্যমে আমার মেয়ে রূপশ্রীর জন্য আবেদন করে। এখন বিডিও জানাচ্ছেন আমাদের কাছে যে রিসিভ কপি আছে তা ভুয়ো আবেদনের।’ সেক্ষেত্রে তাঁর প্রশ্ন, তবে কি দুয়ারের সরকার কর্মসূচিতে ভুয়ো অফিসার ছিলেন? একই অভিযোগ জবা রায়ের বাবা অনিল রায়ের।

- Advertisement -

মেখলিগঞ্জের বিডিও অরুণ কুমার সামন্ত বলেন, ‘রুপশ্রীর টাকা না পেয়ে দু-তিনজন আমার কাছে এসেছিলেন। কিন্তু তাঁরা যে রিসিভ কপি দেখাচ্ছেন দুয়ারের সরকারের, তা ভুয়ো। যে তিনজন অফিসার দায়িত্বে ছিলেন রূপশ্রী প্রকল্পের, তাঁদের কারও স্বাক্ষর নেই তাতে।’