হিংসাকে প্রতিরোধ করতে হিংসার পথে যেতে হবে: দিলীপ

270

কলকাতা: হিংসাকে প্রতিরোধ করতে হিংসার পথে যেতে কোনওরকম দ্বিধা করবে না বিজেপি। মঙ্গলবার দলীয় দপ্তরের পাশেই ডঃ শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের প্রয়াণ দিবসে তাঁর প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে মাল্যদান করেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। সেখানেই যোগ দিয়ে একথা বলেন তিনি।

দিলীপবাবু বলেন, ‘যাঁরা হিংসার জবাব হিংসা নিয়ে দিতে জানেন না, তাঁরা হলেন কাপুরুষ।’ সেই সঙ্গে তিনি ডঃ শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের প্রতি স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে বলেন, ‘বাংলাকে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার হাত থেকে বাঁচিয়েছিলেন ভারত কেশরী ডঃ শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়। আর বর্তমানে সেই বাংলা রাজনৈতিক দাঙ্গায় জর্জরিত।’ এই রাজনৈতিক হামলা থেকে বাংলাকে মুক্ত করতে হলে ডঃ শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের উত্তরসূরিদেরই এগিয়ে আসতে হবে। আর সেই কাজ তাঁরা অর্থাৎ বিজেপির কর্মী সমর্থকরাই করবেন। আর সেটাই ডঃ শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের যোগ্য উত্তরসূরির কাজ হবে বলে অভিমত ব্যক্ত করেন দিলীপবাবু।

- Advertisement -

তিনি আরও বলেন, ‘ডঃ শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের মাধ্যমে দেশের যে শুদ্ধিকরণের কাজ শুরু হয়েছিল, আজ শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের সেই স্বপ্ন সার্থক হয়েছে। দেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দল হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের গঠিত জনসংঘ। যা পরবর্তী পর্যায়ে ভারতীয় জনতা পার্টি হিসেবে পরিচিত। শুধু তাই নয়, দ্বিতীয়বারের জন্য পুনরায় দেশের ক্ষমতা দখল করেছেন শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের যোগ্য উত্তরসূরি নরেন্দ্র মোদি।

উল্লেখ্য, এদিন ডঃ শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের প্রয়াণ দিবসে সকাল বেলা কেওড়াতলা মহাশ্মশানে ডঃ মুখার্জির প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানিয়ে কার্যক্রম শুরু করেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ সহ অন্যান্য রাজ্য নেতৃত্ব। শুধু তাই নয়, এদিন রাজ্যজুড়ে বিভিন্ন প্রান্তে তাঁরা ডঃ শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের প্রতি শ্রদ্ধাজ্ঞাপন যেমন করেছেন তেমনি তাঁর নীতি ও আদর্শের প্রতি আলোকপাত করেছেন বলে জানা গিয়েছে। এছাড়া বেশকিছু জায়গায় বিজেপির তরফে রক্তদান শিবিরের আয়োজনও করা হয়েছে।

এদিন দিলীপবাবুর উপরোক্ত মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে প্রদেশ কংগ্রেসের সভাপতি সোমেন মিত্র বলেন, ‘দিলীপবাবুদের মুখেই ওই ধরনের কথা শোভা পায়। কারণ তাঁরাই মহাত্মা গান্ধিকে হত্যা করে হিংসার রাজনীতি শুরু করেছিলেন। আর তাঁরাই আজ গণতন্ত্রের কথা বলে গণতন্ত্রের বড় পূজারি হয়েছে। এর থেকে হাস্যকর আর কিছু হতে পারে না।’