বেহাল রাস্তায় উধাও পথবাতি, ক্ষুব্ধ স্থানীয়রা

80

হেমতাবাদ: বেহাল রাস্তা। উধাও পথবাতি। বাড়ছে দূর্ঘটনা আশঙ্কা। অন্যদিকে বাড়ছে চুরি ছিনতাইয়ের ঘটনা। পথ চলা দায় হয়ে উঠেছে। আতঙ্কে ভুগতে শুরু করেছে উত্তর দিনাজপুর জেলার হেমতাবাদ ব্লকের একাধিক গ্রামের বাসিন্দারা। বাড়ছে ক্ষোভ। দ্রুত রাস্তা সংস্কারের দাবি তুলে ধরেছেন স্থানীয়রা।

স্থানীয়দের অভিযোগ, গত বছর জুলাই মাসে বন্যা পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল পথ চলা দায় হয়ে উঠেছে। অন্যদিকে ভারী বৃষ্টিপাতের জেরে গ্রামের রাস্তা আরও বিপদজনক হয়ে গিয়েছে। খানাখন্দে ভরেছে রাস্তা। একপ্রকার প্রাণ হাতে নিয়েই রোজ চলাচল করতে হচ্ছে স্থানীয়দের। পাশাপাশি দেহচি এবং ভোগ্রামের দুটি সেতু বেহাল হয়ে পড়েছে। সমস্যা সমাধানের আশায় একাধিকবার গ্রাম পঞ্চায়েত, পঞ্চায়েত সমিতি জেলা পরিষদের সদস্যদের জানানো হলেও কাজের কাজ কিছুই হয়নি বলে দাবি স্থানীয়দের। বেহাল রাস্তার জেরে সম্প্রতি চারটি দুর্ঘটনা ঘটেছে ওই এলাকায়। প্রাণহানির ঘটনা না ঘটলেও গুরুতর জখম হন অনেকেই। বর্তমানে তাঁরা চিকিৎসাধীন রয়েছেন। স্থানীয় সূত্রে খবর, ওই গ্রামের রাস্তা দিয়ে সীমান্ত গ্রামের প্রায় দশ হাজার মানুষ হেমতাবাদ ও রায়গঞ্জ সদর শহরে বিভিন্ন কাজে যায়। অভিযোগ, পথবাতি না থাকায় দুষ্কৃতীদের দৌরাত্ম্য বাড়ছে। ঘটছে চুরি ছিনতইয়ের ঘটনা। ওই রাস্তাতেই রয়েছে তিনটি হাইস্কুল, একটি হাই মাদ্রাসা ৩১টি প্রাথমিক বিদ্যালয়।

- Advertisement -

পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি শেখর রায় বলেন, ‘লকডাউনের কারণে রাস্তার কাজ এতদিন বন্ধ ছিল। ওই রাস্তাটি জেলা পরিষদের অধীনে রয়েছে। জেলার প্রচুর ভাঙা রাস্তা অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে ঠিক করা হচ্ছে। আশা করি ওই রাস্তাটিও দ্রুত ঠিক করা হবে।‘

বিজেপির জেলা সভাপতি বিশ্বজিৎ লাহিড়ী বলেন, ‘হেমতাবাদ ব্লকের অধিকাংশ রাস্তাই বেহাল। মণ্ডল সভাপতিদের এই বিষয়ে আন্দোলনে নামার কথা বলা হয়েছে।‘

হেমতাবাদ থানার ওসি দিলীপ রায় বলেন, ‘সাম্প্রতিক সময়ে ছিনতাইয়ের ঘটনার অভিযোগ করেননি। যারা চুরি ছিনতাইয়ের সঙ্গে যুক্ত তাদের অধিকাংশকেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকিদের খোঁজে চলছে তল্লাশি।‘