কোভিড হাসপাতালের সুপারকে শোকজ নোটিশ ধরাল জেলা স্বাস্থ্যদপ্তর

1276

রায়গঞ্জ: রায়গঞ্জের কোভিড হাসপাতালের সুপার টানা প্রায় ছ’মাস ধরে ডিউটি করলেও একদিনের জন্যও তার ছুটি মেলেনি। ফলে বারবার ছুটির আবেদন করেও জেলা স্বাস্থ্যদপ্তর আবেদন মঞ্জুর না করায় তিনি গত সোমবার থেকে হাসপাতালে গরহাজির হন। এরপরেই জেলা স্বাস্থ্যদপ্তরের মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ওই হাসপাতাল সুপারকে শোকজ করে।

যদিও কোভিড হাসপাতালের সুপার ড. দিলীপ কুমার গুপ্তা বলেন, “আমার বাবা-মা দু’জনেই অসুস্থ। তারা কলকাতায় রয়েছেন। আমি দীর্ঘদিন ধরে এই মারণ ভাইরাসের সঙ্গে লড়াই করে চলেছি এবং নিজেও এই মারণ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলাম। কিন্তু অসুস্থ বাবা-মায়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে যাওয়ার জন্য বারবার আবেদন করা সত্বেও একদিনের জন্য ছুটি মঞ্জুর হয়নি। ফলে ফের ছুটির আবেদন করে যেতে বাধ্য হয়েছি। এছাড়া বৃদ্ধ বাবা-মার অবস্থা এতটাই খারাপ যে বাড়ি না গিয়ে আমার কাছে আর অন্য কোনও উপায় ছিল না।”

- Advertisement -

অপরদিকে জেলা স্বাস্থ্যদপ্তরের মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক কোভিড হাসপাতালের সুপার চলে যাওয়ার পরে গরহাজিরার জন্য ইতিমধ্যেই তাকে শোকজ করেছে। কোভিড হাসপাতালের সুপার আরও বলেন, “আমার সমস্যার কথা কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছিলাম। এই শোকজের সঠিক উত্তরও আমি দিয়ে দেব। এতে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের যা করণীয় সেটি আমি মাথা পেতে নেব। আমি অসুস্থ মানুষের জন্য কাজ করছি। ছয়মাস দিনরাত কোনও ছুটি ছাড়া নিজের কর্তব্য পালনে এতটুকু খামতি রাখিনি। কিন্তু পরিবারের প্রতিও আমার কর্তব্য রয়েছে। সেই বিষয়টি আশা করি মানবিকভাবে কর্তৃপক্ষ বিবেচনা করবেন।”

ওই ঘটনায় রীতিমতো উদ্বিগ্ন জেলার চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মী মহল। এদিকে রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বহু চিকিৎসক যারা সপ্তাহে দু’দিন ডিউটি করে বাকি সময় কলকাতায় কাটিয়ে দেন। দীর্ঘদিন ধরে এই প্রক্রিয়া চলতে থাকলেও জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর কোনও ব্যবস্থাই নেয়নি। কোভিড হাসপাতালের মতো এক স্পর্শকাতর জায়গায় টানা ছয়মাস ডিউটি করে এবং নিজেও কোভিডে আক্রান্ত হয়েছেন। তারপর অসুস্থ বাবা-মাকে দেখার জন্য বারবার ছুটির আবেদন করেও জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর তার প্রতি অমানবিক আচরণ করেছে বলে চিকিৎসকদের একাংশের অভিযোগ।