আস্লানের রেকর্ডের দিনে মেলবোর্নে জোকার-রাজ

মেলবোর্ন : অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের কোয়ার্টার ফাইনালে সাড়ে তিন ঘন্টার লড়াই শেষে আলেকজান্ডার জেভরেভকে ছিটকে দিলেন নোভাক জকোভিচ। এদিন গ্রিগর দিমিত্রিভকে হারিয়ে নতুন রেকর্ড গড়লেন আস্লান কারাৎসেভ। সেমিফাইনালে প্রতিপক্ষ হিসেবে নাওমি ওসাকাকে পেলেন সেরেনা উইলিয়ামস।

এদিন চার সেটের লড়াই শেষে জকোভিচ জিতলেন ৬-৭ (৬-৮), ৬-২, ৬-৪, ৭-৬ (৮-৬) সেটে। কিন্তু স্কোরলাইন দিয়ে এই ম্যাচের উত্তেজনা বোঝা যাবে না। প্রথম সেটে ১ ঘন্টা লড়ে হারলেন জোকার। কিন্তু দ্বিতীয় ও তৃতীয় সেট শেষ করে দিলেন মাত্র ২৮ ও ৪৫ মিনিটে। চতুর্থ সেট আবার চলল ১ ঘন্টা ১৬ মিনিট। এই নিয়ে টানা পাঁচবার জেভরেভের বিরুদ্ধে জিতলেন জোকার।
সিঙ্গলসে চলতি বছরে একটিও ম্যাচ হারেননি র্যাংকিংয়ে শীর্ষে থাকা এই সার্বিয়ান। এই নিয়ে নয় বার অস্ট্রলিয়ান ওপেনের শেষ চারে উঠলেন জোকার। আগের আটবারই চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন। এবার হবেন কি না তা সময় বলবে। তবে এদিন যেভাবে ম্যাচ বের করলেন, তাতে না হওয়াটাই অঘটন। সেমিতে জকোভিচের প্রতিপক্ষ আস্লান। তাঁকে নিয়ে জোকার বললেন, সত্যি বলতে ওর খেলা এর আগে দেখিনি।
১৯৬৮ সালে টেনিসে ওপেন এরা শুরু হওয়ার পর যোগ্যতাঅর্জন পর্বে খেলা কোনও প্লেয়ার নিজের প্রথম গ্র্যান্ড স্লামেই সেমিফাইনাল খেলতে পারেননি। এদিন সেটাই করলেন আস্লান, দিমিত্রিভকে ২-৬, ৬-৪, ৬-১, ৬-২ সেটে হারিয়ে। রড লেভার এরিনায় তাঁর জয়ে অনুঘটক হিসেবে কাজ করল দিমিত্রিভের চোট। তৃতীয় সেটের মাঝে মেডিকেল টাইমআউট নিলেন। এমনকি সেটের পর ট্রেনারকে দিয়ে পিঠে ম্যাসাজও করালেন। কিন্তু আর ঘুরে দাঁড়াতে পারলেন না দিমিত্রিভ।
তৃতীয় সেট শেষ হল মাত্র ২৮ মিনিটে, চতুর্থ সেট স্থায়ী হল ৩৬ মিনিট। সার্কিটে বেবি ফেডেরার বলে পরিচিত দিমিত্রিভের প্রতিভা নিয়ে কারও সন্দেহ নেই। কিন্তু তিনি লক্ষ্যভেদ করতে ব্যর্থ হন বারবারই। এবার প্রি-কোয়ার্টারে ডমিনিক থিয়েমকে ছিটকে দিয়ে ফের একবার আশা জাগিয়েছিলেন। কিন্তু শেষপর্যন্ত বেবি হয়ে থাকতে হল মারিয়া শারাপোভার প্রাক্তন প্রেমিককে, আর ফেডেরারের পথে হাটা হল না তাঁর।
এরআগে ১৯৭৭ সালে যোগ্যতাঅর্জন পর্বে খেলা প্লেয়ার হিসেবে প্রথমবার কোনও গ্র্যান্ড স্লামের সেমিফাইনাল খেলেছিলেন বব গিল্টিনান, এই মেলবোর্নেই। এদিন তাঁর রেকর্ডকেও ছাপিয়ে যাওয়ার পর আস্লান বললেন, প্রথমবার সেমিফাইনাল খেলব। ব্যাপারটা এখনও অবিশ্বাস্য। শুরুতে কাজটা শক্ত ছিল। তবে আমি হাল ছাড়িনি। গত প্রায় দুই দশকে আস্লানের (১১৪) থেকে বেশি র্যাংকিংয়ে কেউ কোনও গ্র্যান্ড স্লামের সেমিফাইনাল খেলেনি।
মেয়েদের বিভাগে কোয়ার্টার ফাইনালেই দেখা হল সেরেনা উইলিয়ামস ও সিমোনা হালেপের। বিশ্বের দুনম্বর হালেপকে কোনওরকম রেয়াতই করলেন না ২৩ গ্র্যান্ড স্লামের মালকিন। ১ ঘন্টা ২১ মিনিটে ম্যাচ জিতে সেমিফাইনালে পৌঁছে গেলেন। ম্যাচের ফল সেরেনার পক্ষে ৬-৩, ৬-৩। ম্যাচ শেষে বললেন, বিশ্বের দুনম্বরের বিরুদ্ধে কীভাবে খেলতে হয় আমি জানি। এদিন কোর্টে সেভাবেই খেলেছি। সেমিতে তাঁর প্রতিপক্ষ নাওমি ওসাকা এদিন ৬-২, ৬-২ সেটে হারালেন সু-ওয়ে হসিকে।

- Advertisement -