চাঁচল, ১ অগাষ্ট: ঝুঁকি নিয়ে সফল অস্ত্রোপচার করে এক গর্ভবতীকে বাঁচালেন মালদার চাঁচল সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতালের চিকিৎসক স্ত্রী রোগ বিশেষজ্ঞ সৌমেন চৌধুরী। শুধু তাই নয় তার গর্ভেরও সন্তানও সুস্থ ভাবেই পৃথিবীর আলো দেখেছে। গত জুন মাসে ফেলোপাইন টিউবে ভ্রুণ আটকে থাকা মরনাপন্ন এক মহিলাকে বাঁচিয়েছিলেন তিনি।
হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, হরিশ্চন্দ্রপুরে কুশিদা লাগোয়া রামপুরের বাসিন্দা রেনু বিবিকে সোমবার রাতে হাসপাতালে ভর্তি করান তাঁর পরিবারের লোকজন। রাতে তাঁর প্রসব যন্ত্রনা শুরু হওয়ার পর স্বাভাবিক প্রসব করানোর উদ্দেশ্যেই তাঁকে লেবার রুমে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে স্বাভাবিক প্রসবের চেষ্টা করে ব্যর্থ হন চিকিৎসকরা। তারপরেই পরীক্ষা করে চিকিৎসক বুঝতে পারেন, জরায়ুতে সন্তান আটকে রয়েছে।
চিকিৎসক সৌমেন চৌধুরী বলেন, ‘সাধারণত জড়ায়ুতে কোনও ক্রুটি হয়ে থাকলেই এমনটা হয়।তাই পরীক্ষা করে দেখলাম ওই মহিলার জরায়ু ছোট ও ক্রুটি রয়েছে, একটি ফেলোপিয়ান টিউবও অকেজো। এক্ষেত্রে সিজারিয়ান অপারেশন করতে হয়, তাতেও অবশ্য ঝুঁকি রয়েছে। আবার ওই অস্ত্রোপচারে পরিকাঠামো রয়েছে মেডিক্যাল কলেজগুলিতে। কিন্তু মাঝপথে প্রসূতিকে মেডিক্যাল কলেজে পাঠানো সম্ভব নয় বলে শেষচেষ্টা হিসেবে ঝুঁকি নিয়েই অস্ত্রোপচার করা হয় এবং মহিলা কন্যা সন্তান প্রসব করা হয়। বর্তমানে দুইজনেই সুস্থ রয়েছে’।
হাসপাতালে এই ধরনে অস্ত্রোপচার এটাই প্রথম। তাই মহিলার পরিবারের পাশাপাশি এই অস্ত্রপচার সফলে খুশি চিকৎসক মহলও।
হাসপাতালের সুপার সুব্রত বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, এমন অস্ত্রোপচার মেডিক্যাল কলেজেই সম্ভব। তাও এমন রোগী খুব একটা মেলে না। এখানে এই পরিকাঠামোয় এমন অস্ত্রোপচার হয়েছে, আমরা গর্বিত। স্বাস্থ্যভবনকেও আমরা বিস্তারিত জানিয়েছি।