কোচবিহার, ২৬ নভেম্বরঃ ফের রোগীমৃত্যুকে কেন্দ্র করে ধুন্ধুমার কোচবিহার সরকারি মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল। ঘটনার প্রতিবাদে আধঘণ্টার প্রতীকী অবস্থান বিক্ষোভ করলেন চিকিৎসক ও নার্সরা। এর জেরে দূর্ভোগে পড়তে হয় রোগীদের।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, সোমবার রাতে কোচবিহার শহরের পাঁচ নম্বর ওয়ার্ডের এক মুমূর্ষু রোগী দুলাল রায় (৭২) সিসিইউ-তে মারা যান। সেই খবর পরিবারের লোকজনদের জানানোর পর উত্তেজিত হয়ে ওঠেন তাঁরা। সিসিইউ-তে ভাঙচুর চালানো হয় বলে অভিযোগ। হেনস্তা করা হয় কর্তব্যরত চিকিৎসক ও নার্সদের। ঘটনার খবর পেয়ে রাতেই পাঁচজনকে গ্রেফতার করে কোতয়ালি থানার পুলিশ। চিকিৎসক, নার্সদের নিগ্রহ ও হাসপাতালে ভাঙচুরের প্রতিবাদে মঙ্গলবার বহির্বিভাগের পরিসেবা বন্ধ রেখে এক ঘণ্টার কর্মবিরতি করার উদ্যোগ নেন চিকিৎসকরা। এমএসভিপি ড. রাজীব প্রসাদের হস্তক্ষেপে আধঘণ্টা পর আন্দোলন প্রত্যাহার করে পরিসেবা দেওয়া শুরু করেন চিকিৎসকরা।

চিকিৎসক নীলরতন দাস বলেন, ‘যে রোগী মারা গিয়েছেন তিনি খুবই মুমূর্ষু অবস্থায় ছিলেন। তাঁকে বাঁচানো যে প্রায় অসম্ভব তাঁর পরিবারকে আগে থেকেই জানানো হয়েছিল। তবুও ভাঙচুর বা নিগ্রহের ঘটনা কখনই কাম্য নয়। কিছু হলেই চিকিৎসকদের ওপর হামলা করা হচ্ছে এটি বন্ধ হওয়া দরকার।’ এমএসভিপি ড. রাজীব প্রসাদ বলেন, ‘সাধারণ মানুষ যদি সচেতন না হয় তাহলে হাসপাতালে পরিসেবা সঠিকভাবে দেওয়া সম্ভব নয়।’

প্রসঙ্গত, এর আগেও একাধিকবার কোচবিহার মেডিকেলে চিকিৎসক নিগ্রহের ঘটনা ঘটেছে। মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে এক চিকিৎসক বদলিও নিয়ে নেন বলে অভিযোগ।