রাম মন্দির নির্মাণে দান করলে মিলবে আয়কর ছাড়

ওয়েব ডেস্ক: অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণে অনুদান দিলে ৮০-জি ধারায় আয়কর ছাড় মিলবে। কেন্দ্রীয় অর্থ মন্ত্রকের অধীনস্থ রাজস্ব বিভাগের সেন্ট্রাল বোর্ড অব ডায়রেক্ট ট্যাক্সেস শুক্রবার একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করে এই বিষয়টি জানিয়েছে। এর ফলে মন্দির নির্মাণের জন্য অনুদান দিলে কর ছাড় পাবেন দাতারা।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, অযোধ্যায় মন্দির নির্মাণের জন্য গঠিত শ্রীরাম জন্মভূমি তীর্থক্ষেত্র ট্রাস্টকে আয়কর আইনের ৮০-জি ধারার সুবিধা পাওয়ার সুযোগ দেওয়া হল। দাতারা কর ছাড়ের সুযোগ পাবেন ২০২০-২১ অর্থবর্ষ থেকেই। রাম মন্দিরের ঐতিহাসিক ও ধর্মীয় গুরুত্ব বিবেচনা করে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

- Advertisement -

উল্লেখ্য, দীর্ঘ টানাপড়েনের পর সুপ্রিম কোর্ট ২০১৯-এর নভেম্বরে অযোধ্যা মামলার রায় ঘোষণা করে। শীর্ষ আদালতের তৎকালীন প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ রায়ের প্রতিলিপি পড়েন। বিতর্কিত ওই ২.৭৭ একর জায়গায় রাম মন্দির নির্মাণের অনুমতি দেয় শীর্ষ আদালত। পাশাপাশি মসজিদ তৈরির জন্য সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডকে অন্য জায়গায় ৫ একর জমি দেওয়ার নির্দেশও দেয় সুপ্রিম কোর্ট। ট্রাস্টের মাধ্যমে মন্দির তৈরির প্রক্রিয়া শুরু করারও নির্দেশ দেওয়া হয়। আদালতের সেই নির্দেশের পর চলতি বছরের ৫ ফেব্রুয়ারি মন্দির নির্মাণে তত্ত্বাবধানের জন্য শ্রীরাম জন্মভূমি তীর্থক্ষেত্র ট্রাস্ট তৈরী হয়। কেন্দ্র ১৫ সদস্যের ওই ট্রাস্ট গঠন করে।

আয়কর আইনের ১১ ও ১২ ধারায় করছাড়ের জন্য সেবা প্রতিষ্ঠান এবং ধর্মীয় সংগঠনগুলি আবেদন জানাতে পারে। সরকার অনুমোদন দিলে সংগঠনকে তার আয়ের উপর কোনও কর দিতে হয় না। শ্রীরাম জন্মভূমি তীর্থ ক্ষেত্র ট্রাস্টও ওই আইনেই করমুক্তির আবেদন করেছিল। কেন্দ্র সেই আবেদন গ্রাহ্য করায় মন্দির নির্মাণের জন্য অর্থদান করলে করছাড় পাবেন দাতারা।

ঐতিহাসিক ও ধর্মীয় স্থান মাহাত্ম্য বিবেচনা করে চেন্নাই ও মহারাষ্ট্রের একাধিক ট্রাস্টকে আয়কর ছাড়ের সুবিধা দিয়েছে কেন্দ্র। এর আগে মহারাষ্ট্রের সাজ্জানগদের রামদাস স্বামী মঠ, রামদাস স্বামী সমাধি মন্দির, চেন্নাইয়ের মাইলাপুরের আরুলমিগু কাপালীশ্বরর তিরুকোইল মন্দির, চেন্নাইয়ের কোট্টিভাক্কমের আর্যকুড়ি শ্রী শ্রীনিবাস পেরুমল মন্দির, অমৃতসরের শ্রী হারমন্দির সাহিব গুরুদ্বারকে সহ বেশ কিছু ট্রাস্টকে আয়কর ছাড়ের সুবিধা দেওয়া হয়েছে।