টিকা নেওয়ার দিন বেশি করে জল খান

281

একসময় করোনা মহামারি আমাদের এমন ফাঁপরে ফেলেছিল যে, কবে টিকা আসবে সেই আশায় মানুষ হাপিত্যেশ করে বসেছিলেন। এখন যখন টিকা এসে গিয়েছে, তখন অনেকেই টিকা নিতে ভয় পাচ্ছেন। টিকা নেওয়ার পর কোন খাবারে কী পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হবে, ঠিক কোন খাবার খেলে টিকা যথাযথ কাজ করবে ইত্যাদি একগুচ্ছ প্রশ্ন মানুষের। কিন্তু আর চিন্তা নয়। টিকা নিলে কী খাবেন আর কী খাবেন না সে বিষয়ে আমাদের পরামর্শ দিচ্ছেন পুষ্টিবিদ ডঃ প্রজ্ঞা চ্যাটার্জি

টিকা কীভাবে কাজ করে
প্রথমেই বলে রাখি, টিকা নেওয়ার পরে তা কাজ করতে সময় নেয়। কারণ প্রথম ডোজ দেওয়ার পর টিকা দেহকোষের মধ্যে ঢুকে ভাইরাল প্রোটিনকে নকল করে। তারপর ইমিউনো সেল বা রোগ প্রতিরোধ করার বি বা টি কোষকে সক্রিয় করার চেষ্টা করে। দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার পর এই প্রক্রিয়া আরও জোরদার হয়।

- Advertisement -

টিকার সঙ্গে পুষ্টির সম্পর্ক
সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন-এর মতে, শুধু টিকা নিলেই হবে না, সেইসঙ্গে এমন খাবার খেতে হবে, যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। আর তাহলেই শক্তিশালী হবে ইমিউনিটি সেল।

তরল জাতীয় খাবারের প্রয়োজনীয়তা
টিকা নিলে শরীরে একটু আধটু জ্বালা বা প্রদাহ হয়। কারণ আমাদের শরীরে কতগুলো স্পাইক প্রেটিন থাকে। এই স্পাইক প্রোটিনের বিরুদ্ধে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে ওঠার কারণেই জ্বালাটা হয়। এই ধরনের ছোটখাটো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া এড়াতে টিকা নেওয়ার দিন বেশি করে তরল জাতীয় খাবার যেমন, সুপ, স্টু, জুস ইত্যাদি খেতে পারলে ভালো। সকাল থেকে যথেষ্ট পরিমাণে জল খান। অন্তত ৩ লিটার খেতেই হবে।

কতটা প্রোটিন খাব
টিকা নেওয়ার পাশাপাশি পর্যাপ্ত প্রোটিন নিলে টিকা দ্রুত কাজ করবে। সাধারণভাবে একজন মানুষকে তাঁর শরীরের মোট ওজন অনুযায়ী প্রোটিন খেতে হয়। অর্থাত্ শরীরের প্রতি কেজি ওজনের ১-১.২ গ্রাম প্রোটিন নিতে হবে। যেমন, কারও ওজন ৪০ কেজি হলে তিনি ৪০ গ্রাম প্রোটিন নেবেন। টিকা নেওয়ার সময় খেয়াল রাখতে হবে এই ৪০ গ্রাম প্রোটিন যেন অবশ্যই থাকে।

প্রোটিন হিসেবে কী খাব
অবশ্যই ডিম, মাছ, মাংস। ডিম এবং দুধে আছে অ্যামিনো অ্যাসিড, যা শরীরের জন্য ভীষণ দরকার। একটা গোটা ডিম ৩০ গ্রাম চর্বি ছাড়া মাংসের সমান। এছাড়া ডিম থেকে অ্যালবুমিন প্রোটিন পাওয়া যায়, যা শরীরের জন্য, বিশেষ করে টিসু্য়র যত্নে বা টিসু্য় তৈরিতে খুব উপকারী। যাঁরা ডিম খান না, তাঁরা চিজ খেতে পারেন। চিজে ভিটামিন এ, ডি, ই, বি১২ ইত্যাদি রয়েছে।

নিরামিষাশীদের জন্য
প্রতিদিনের খাবারে মটর, ছোলা, রাজমা এবং মশুর ডালের মধ্যে যে কোনও একটা রাখতে পারেন। এছাড়া সয়াবিন, পনির, রাজমা ইত্যাদি বেশি করে খাবেন।

অন্য খাবার
প্রতিদিন অন্তত পক্ষে ১০০ গ্রাম ফল, ৩০০ গ্রাম শাকসবজি খাওয়া বাধ্যতামূলক।

কী খাব না
কার্বোনেটেড ড্রিংকস, প্রসেসড ফুড এবং ফাস্ট ফুড এড়িয়ে চলুন। চর্বিযুক্ত খাবার ৩০ গ্রামের বেশি নয়।

রোদ পোহাতে হবে
টিকা এবং পুষ্টিকর খাবারের সঙ্গে প্রয়োজন ভিটামিন-ডি। এজন্য প্রতিদিন সকাল ১০টার আগে ৫-৭ মিনিট যদি রোদে দাঁড়াতে পারেন, তাহলে খুব ভালো হয়। এতে  রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে।

অ্যালার্জি থাকলে
টিকার সঙ্গে অ্যালার্জির সম্পর্ক বেশ ভালোই। তাই কারও যদি কোনও খাবারে অ্যালার্জি থাকে, তাহলে টিকা নেওয়ার ৩-৪ দিন আগে থেকে সেই খাবার না খাওয়াই ভালো। যেমন, কারও যদি ডিমে অ্যালার্জি থাকে, তাহলে তিনি টিকা নেওয়ার ৩-৪ দিন আগে থেকে ডিম তো খাবেনই না, এমনকি টিকা নেওয়ার পরও খাবেন না। নয়তো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বেড়ে যেতে পারে।

বয়স্কদের জন্য
যেহেতু বয়স বাড়লে মানুষের শারীরিক পরিশ্রম কমে যায়, তাই তাঁদের ক্যালোরি কম লাগে। তাই টিকা নেওয়ার পর তাঁরা বেশি ক্যালোরি বা রিচ প্রোটিনযুক্ত খাবার না খেয়ে মডারেট প্রোটিন, ভিটামিন, মিনারেলস নিতে পারেন।