করোনা সংক্রমণের জের, ১৭ অগাস্ট পর্যন্ত বন্ধ মাল পুরসভা

286

মালবাজার: করোনা সংক্রমণের জেরে মাল পুরসভা কার্যালয় ১৭ অগাস্ট পর্যন্ত বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। পুরসভার প্রশাসক বোর্ড সূত্রে জানা গিয়েছে, পানীয় জল, সলিড ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্ট, স্বাস্থ্য-র মতন জরুরীকালীন বিভাগগুলি চালু থাকবে। শনিবার মালবাজারের সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে ট্রুনাট মেশিনে মাল পুরসভার প্রশাসক বোর্ডের চেয়ারপার্সন স্বপন সাহার করোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসে। রবিবার তাঁকে মাটিগাড়া একটি বেসরকারি নার্সিংহোমে ভর্তি করা হয়েছে। পুরসভার তরফে বলা হয়েছে উদ্ভূত পরিস্থিতির জেরে যথোপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

মাল শহর এলাকাতে করোনার সংক্রমণ ক্রমেই বাড়ছে। সোমবার দুপুর পর্যন্ত শহরে মোট ১১৪ জন করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন। এরমধ্যে তিনজন মারা গিয়েছেন। শনিবার রাতে পুরসভার প্রশাসক বোর্ডের চেয়ারর্পাসন স্বপন সাহার করোনা সংক্রমণের খবর ছড়াতেই বিভিন্ন মহল উদ্বিগ্ন হয়ে ওঠে। পুরসভা সূত্রে জানা গিয়েছে, রবিবার সকালে তাঁকে শিলিগুড়ির মাটিগাড়ার একটি বেসরকারি নার্সিংহোমে ভর্তি করা হয়েছে। সেখানে তাঁর শারীরিক পরীক্ষা, সিটি স্ক্যান ইত্যাদি হয়েছে। তাঁর শারীরিক পরিস্থিতি বর্তমানে স্থিতিশীলই আছে। তবে স্বপনবাবু আগে থেকেই উচ্চরক্তচাপ, রক্ত শর্করা মতো সমস্যা আছে। তাই চিকিৎসক মহল শারীরিক পরিস্থিতির উপর বাড়তি নজর রাখছেন।

- Advertisement -

মাল পুরসভার প্রশাসক বোর্ডের সদস্য দীপা সরকার বলেন, আপাতত পুরসভার কার্যালয় ১৭ অগাস্ট পর্যন্ত বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ১৮ আগস্ট থেকে কার্যালয়ের কাজকর্ম স্বাভাবিক করা হবে। পানীয় জল, সলিড ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্ট, বজ্র নিষ্কাশনের মতন জরুরীকালীন বিভাগগুলি চালু থাকবে। দীপাদেবী বলেন, আমরা পুরসভা কার্যালয় ইতিমধ্যে স্যানিটাইজ করেছি। সোমবার আরেক দফায় স্যানিটাইজ করা হবে। আমরা সাধারণ বাসিন্দাদের করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে অনুরোধ করছি। মাস্ক না পড়লে জরিমানা করা হবে।

এদিকে স্বপনবাবু শারীরিক সুস্থতা কামনা করেছে সমস্ত মহলই। পুরসভার প্রাক্তন বিরোধী দলনেতা তথা ১৪ নম্বর ওয়ার্ডের কো-অর্ডিনেটর সুপ্রতীম সরকার বলেন, আমরা চাই স্বপনবাবু দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠুন। বর্তমান পরিস্থিতিতে আমরা মাল শহরের করোনা ভাইরাস প্রতিরোধের কাজকর্মে একযোগে কাজ করছি। পুরসভা স্তরে আলোচনা করে ইতিমধ্যে ঠিক হয়েছিল শহরের ১৫টি ওয়ার্ডকে পাঁচটি ভাগে বিভক্ত করে বাজার বসানো হবে। আমরা চাই, এই সিদ্ধান্তই কঠোরভাবে বলবত করা হোক। বাজারের ভিড় কমাতে আমরা সাধারণ বাসিন্দাদের সহযোগিতা চাইছি।

এদিকে, রবিবার মাল শহরে সাপ্তাহিক হাট হয়নি। সোমবার শহরের দৈনিক বাজার, স্টেশন রোড, বাজার রোড ইত্যাদি এলাকা থেকেই বাসিন্দারা কেনাকাটা করেছেন। শহরের বিভিন্ন মহল থেকে শহরজুড়ে জোরদারভাবে স্যানিটাইজেশন করার দাবি উঠেছে। মালের মহকুমা শাসক শান্তনু বালা বলেন, আমরা উদ্ভুত পরিস্থিতির দিকে নজর রাখছি। প্রশাসনিক মহল থেকে যথোপযুক্ত পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। দুশ্চিন্তার কারণ নেই। আমরা বাসিন্দাদের কাছে আতঙ্কিত না হওয়ার আবেদন রেখেছি।