পুরসভা ও পূর্ত দপ্তরের টানাপোড়নে নিকাশি ব্যবস্থা বেহাল দিনহাটায়

256

দিনহাটা: গত চল্লিশ বছরে দিনহাটা পুরসভায় একাধিকবার রাজনৈতিক ক্ষমতার বদল হয়েছে। কিন্তু, পুরএলাকার নিকাশি সমস্যার সমাধান হয়নি। ফলে ফি বছর বর্ষাতে নিকাশির সমস্যার কারণে ভোগান্তির শিকার হন একাধিক ওয়ার্ডের বাসিন্দারা। এ বছরও একই অবস্থা। গত কয়েক দিনের বৃষ্টিতে দিনহাটা পুরসভার একাধিক ওয়ার্ডের নিকাশি নালার অবস্থা বেহাল।

ভৌগলিক কারণে দিনহাটা পুরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দারা বেশি সমস্যায় পড়েন। কারণ, পুরসভার অন্যান্য ওয়ার্ডের তুলনায় অনেকটাই নিচু ১ নম্বর ওয়ার্ড। তার উপর এই ওয়ার্ডের একাংশে এখনও নিকাশিনালা তৈরি হয়নি। তবে ১ নম্বর ওয়ার্ডের দিনহাটা কলেজ সংলগ্ন এলাকার বাসিন্দারা সবচাইতে বেশি সমস্যায় পড়েছেন। এই এলাকাটি একেবারে দিনহাটা-কোচবিহার মূল সড়কের ধারে অবস্থিত। কিন্তু পুরসভা ও পূর্ত দপ্তরের টানাপোড়নে সেখানে এখনও নিকাশি নালা তৈরি হয়নি। এদিকে রাস্তা সম্প্রসারণের পর থেকে রাস্তা অনেকটাই উঁচু হয়েছে। আরেকদিকে সেই রাস্তার ধারে নিকাশিনালা না থাকার ফলে রাস্তার জল যেমন বাড়িতে ঢুকছে তেমনি বাড়ির জলও বেরোনোর রাস্তা পাচ্ছে না। ফলস্বরূপ, অল্প বৃষ্টি হলেই ঘরের ভিতর জমছে হাঁটু জল। এরফলে বাড়ছে মশা-মাছির উপদ্রব। বাসিন্দাদের কথায় নিকাশি নালার সমস্যা নিয়ে পুরসভায় তাঁরা একাধিকবার আবেদন জমা দেন। কিন্তু তারপরেও সমস্যার সমাধান হয়নি।

- Advertisement -

ওই ওয়ার্ডের বাসিন্দা সুদেবী কর্মকার, সম্পা পাল বলেন, আমরা শুধুমাত্র সুষ্ঠ নিকাশি নালার দাবি জানিয়েছি। কিন্তু নিকাশি নালা তৈরির জন্য মাপজোক হয়েছে বেশ কয়েকবার। কাজ হয়নি। কয়েকবার খোঁড়াখুড়িই হয়েছে। তবুও,কাজের কাজ কিছুই হয়নি। আর এক বাসিন্দা রাজা পাল বলেন, মেইন রোডের ধারে নিকাশি নালা নেই। এরফলে রাস্তার জল বাড়িতে ঢুকছে। এই জল পেরিয়েই কাজে যেতে হচ্ছে। এবিষয়ে পুরসভার ও কাউন্সিলরকে একাধিকবার বললেও তাঁরা কোনও ব্যবস্থা নেননি বলে অভিযোগ।
স্থানীয় প্রাক্তন কাউন্সিলার জয়দীপ ঘোষ বলেন, রাস্তার ধারের জায়গাটি পূর্ত দপ্তরের। তারা নিকাশি নালা তৈরি করবে বলেছিল। তা না হওয়ায় বাসিন্দারা পুরসভায় তাঁদের সমস্যার কথা জানালে পুরসভার উদ্যোগে নিকাশি নালা তৈরির প্রাথমিক কাজও শুরু হয়। কিন্তু পূর্ত দপ্তর চিঠি করলে কাজ আবার বন্ধ করে দেওয়া হয়। জয়দীপ বাবু জানান, পূর্ত দপ্তর নিজেও করছে না পুরসভার কাজেও বাধা দিচ্ছে, যার ফল ভুগতে হচ্ছে বাসিন্দাদের।

পুরসভার প্রশাসক উদয়ন গুহও বলেন, পূর্ত দপ্তর রাস্তার কাজের সঙ্গে নিকাশি নালা তৈরির করবে বলেছিল। রাস্তার কাজ এখনও শেষ হয়নি দেখা যাক কি হয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পূর্ত দপ্তরের এক আধিকারিক জানান, তিনি কাজে যোগদান করার পরেই এই কথা শোনেন। তবে অফিসিয়ালি কোনও তথ্য তাঁর হাতে নেই। পুরসভা আবেদন জানালে বিষয়টি পূর্ত দপ্তরের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হবে। এমনকি, পূর্ত দপ্তরের অনুমতি নিয়ে পুরসভা করতে পারে বলে জানান।