একই মন্দিরে মা দুর্গা ও ভাণ্ডানী পুজো ডাকুয়াবাড়িতে, শুরু প্রস্তুতি

138

হেলাপাকড়ি: একই মন্দিরে মা দুর্গা ও ভাণ্ডানী পুজো হয় ময়নাগুড়ি ব্লকের হেলাপাকড়ির ডাকুয়াবাড়িতে। এবারও পুজোর প্রস্তুতি শুরু করেছেন তাঁরা। এলাকার সবচেয়ে প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী পুজো হল ডাকুয়াবাড়ির মা দুর্গা ও ভাণ্ডানী পুজো। পরিবারের প্রবীণ সদস্য দেবব্রত রায়ডাকুয়া বলেন, ‘খুব ছোট থাকতে ঠাকুরদা তারকনাথ রায়ডাকুয়া ও ঠাকুমা পাঞ্চালি রায়ডাকুয়াকে বাড়িতে পুজো করতে দেখেছি।’ প্রথমে ওই দম্পতির সন্তানসন্ততি ছিল না। তাই সন্তান লাভের জন্য মা দুর্গা ও মা ভাণ্ডানীর কাছে মানত করেছিলেন। মা দুর্গা ও ভাণ্ডানীদেবী তাদের মানত পূরণ করেন। তারপরই বাড়িতে স্থায়ী মন্দির বানিয়ে পুজো শুরু করেন তাঁরা। একই মন্দিরে প্রথমে মা দুর্গার পুজো হয়। দশমীতে মা দুর্গার বিসর্জন দিয়ে পরের দিন সেই মন্দিরে মা ভাণ্ডানীর পুজো হয়। মা ভাণ্ডানী এখানে বনদুর্গা নামে পূজিতা হন। দেশভাগের পর এদেশে এসে ৭৬ বছর ধরে পুজো করে আসছেন বলে জানান দেবব্রতবাবু।

ডাকুয়াবাড়ির পুজোয় সামিল হন প্রতিবেশীরাও। প্রতিবেশী বীণা রায় বলেন, ‘সবচেয়ে বেশি আনন্দ হয় বিজয়া দশমীর দিন। ওই দিন হেলাপাকড়ি বাজারে মেলা বসে। মেলা থেকে ফেরার পর রাতেই মায়ের বিসর্জন হয়। সেই রেশ কাটতে না কাটতেই পরদিন আবার সেখানে মা ভাণ্ডানীর পুজো শুরু হয়। সব মিলিয়ে দারুণ আনন্দ হয়।’

- Advertisement -