মায়ের কাঠামোই বেঁচে থাকার অবলম্বন

112

হ্যামিল্টনগঞ্জ: দুর্গা পুজোর বিসর্জনের মাধ্যমে যেখানে পুজোর পরিসমাপ্তি ঠিক সেখান থেকেই ওঁদের জীবন জীবিকার কাজ শুরু হয়। কৈলাসে যেতে যেতে মা দুর্গা রেখে যান ওঁদের বেঁচে থাকার রসদ। পুজোর আগে থেকেই বিসর্জনের অপেক্ষায় দিন গুনতে থাকেন হ্যামিল্টনগঞ্জ সংলগ্ন বাসরা নদী ঘাটের নিকটবর্তী গুদামডাবরির পিন্টু মিঞ্জ, লম্বু অসুর থেকে শুরু করে অজিতা মিঞ্জরা। মা দুর্গা এক বছর বাদে আবার ফিরবেন। কিন্তু যাওয়ার আগে ওই গ্ৰামবাসীরা মায়ের আশীর্বাদ থেকে বঞ্চিত হন না। মায়ের প্রতিমা বাসরা নদীতে বিসর্জন দেওয়ার পর থেকেই কাঠামো নদী থেকে তুলতে রাত থেকেই নদীতে ঝাঁপিয়ে পড়েন তাঁরা।

পিন্টু মিঞ্জ বলেন, ‘আগে কেরল, তামিলনাড়ুতে গিয়ে তাঁরা দিন মজুরের কাজ করে পেটের ভাত জোগাড় করতেন। করোনা সংক্রমণের পর তাঁরা আর কাজে ফিরতে পারেননি। তাই অর্থ সংকট তো রয়েছেই। তবে কাজের তাগিদে বাইরে থাকলেও পুজোর সময় তাঁরা বাড়ি ফিরে আসেন প্রতি বছর। যা উপার্জন তাতে দুবেলা খাবার ছাড়া আর কোনও কাজ সম্ভব হয় না। তাই নদী থেকে সংগ্ৰহ করা কাঠামো ও অন্য সামগ্রী নিয়ে বাড়ি মেরামতের কাজে লাগান।’

- Advertisement -