ধারাবাহিকতার জোরে অলিম্পিকে দ্যুতি চাঁদ

নয়াদিল্লি : একবছর আগে অনুশীলন চালিয়ে যাওয়ার অর্থ ছিল না। সাধের গাড়ি বিক্রির সিদ্ধান্ত নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছিলেন। পরে অবশ্য সেই পোস্ট ডিলিট করেন। একবছর পর জোড়া ইভেন্টে অলিম্পিকের যোগ্যতা অর্জন করলেন দ্যুতি চাঁদ।

১০০ মিটার দৌড়ে মাত্র ০.০২ সেকেন্ড বেশি নেওয়ায় সরাসরি টোকিও অলিম্পিকের টিকিট পাননি দ্যুতি। কিন্তু গত কয়েক বছরে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ধারাবাহিকভাবে ভালো পারফরমেন্স করার সুবিধা পেলেন। নিয়ম অনুযায়ী, এবছর অলিম্পিকে ১০০ মিটারে ২২টি এবং ২০০ মিটারে ১৫টি কোটা বিশ্ব র‌্যাংকিং থেকে পূরণ করা হবে। যথাক্রমে ৪৪ এবং ৫১ নম্বরে থাকার সুবাদে আগামী মাসে টোকিওর উদ্দেশ্যে রওনা হবেন দ্যুতি। গত সপ্তাহে পাতিয়ালায় চতুর্থ ইন্ডিয়ান গ্রাঁ প্রিঁতে ১১.১৭ সেকেন্ডে ১০০ মিটার দৌড়ান তিনি। কিন্তু অলিম্পিকের যোগ্যতামান ছিল ১১.১৫ সেকেন্ড।

- Advertisement -

২০১৮ সালে জাকার্তায় এশিয়ান গেমসে ১০০ ও ২০০ মিটারে রুপো জেতেন দ্যুতি। তার বছর চারেক আগে নিজের সবচেয়ে কঠিন লড়াইটা লড়েছিলেন তিনি। শরীরে হরমোনের আধিক্যের কারণে তাঁকে কমনওয়েলথ গেমসের দল থেকে বাদ দেয় জাতীয় অ্যাথলেটিক্স ফেডারেশন। একপ্রকার ব্রাত্য করা হয় ওডিশার এই তারকাকে। যদিও জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অ্যাথলেটিক্স ফেডারেশনের সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ করে কোর্ট ফর অর্বিট্রেশন অফ স্পোর্টে (সিএএস) যান দ্যুতি। সেখানে জয়ের পর ফের ট্র‌্যাকে ফেরেন তিনি।

এরপর নিজেকে দেশের দ্রুততম মহিলার তালিকায় নিয়ে আসেন দ্যুতি। তৃতীয় ভারতীয় মহিলা হিসেবে অলিম্পিকে ১০০ মিটার দৌড়ে অংশ নেন। সঙ্গে এশিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে একাধিক পদক জেতেন। এমনকি চলতি বছর রাজীব গান্ধি খেলরত্ন পুরস্কারের জন্য তাঁর নাম সুপারিশ করেছে ওডিশা সরকার। কয়েক বছর আগে নিজেকে সমকামী ঘোষণা করা ও এক আত্মীয়ার সঙ্গে সম্পর্ক ইস্যুতে পরিবারে সঙ্গে বিবাদে জড়ান দ্যুতি। কিন্তু বিতর্কের প্রভাব নিজের পারফরমেন্সে পড়তে দেননি। তারই জোরে এবার টোকিওয় পদকের লড়াইয়ে নামবেন দ্যুতি চাঁদ।