বর্ষাতেও খোলা থাকবে ইকো টুরিজম সেন্টার

493

জলপাইগুড়ি : বর্ষায় নিয়মমাফিক জঙ্গল বন্ধ থাকলেও গরুমারা জাতীয় উদ্যান ও বক্সা ব্যাঘ্র সংরক্ষণ প্রকল্পের কিছু ইকো টুরিজম সেন্টার খোলা থাকবে। তবে আশপাশে করোনা সংক্রামিতের খোঁজ মিললে এই সেন্টারগুলি বন্ধ করে দেওয়া হবে। এমনটাই জানিয়েছেন রাজ্য বন দপ্তরের প্রধান মুখ্য বনপাল রবিকান্ত সিনহা। অন্যদিকে, বন্যপ্রাণ বিভাগের উত্তরবঙ্গের মুখ্য বনপাল উজ্জ্বল ঘোষ জানান, ইকো পর্যটনকেন্দ্রে পর্যটকদের থার্মাল স্ক্রিনিং করা হবে। হাতে গ্লাভস, মুখে মাস্ক, স্যানিটাইজার রাখা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। গাইড, কর্মী, যৌথ বনপরিচালন কমিটির সদস্য থেকে বনকর্মী সকলকে নিয়ম মেনে পরিষেবা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

প্রতি বছর বর্ষার তিন মাস উত্তরবঙ্গে গরুমারা, জলদাপাড়া, সিঙ্গালিলা, নেওড়া ভ্যালি জাতীয় উদ্যান বন্ধ রাখা হয়। একইভাবে চাপড়ামারি, মহানন্দা ও সিঞ্চল অভয়ারণ্য এবং বক্সা ব্যাঘ্র সংরক্ষণ প্রকল্পও বন্ধ থাকে। এই সময়ে জঙ্গলে ঢোকার উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়, হাতি ও জিপে জঙ্গল সাফারি বন্ধ থাকে, জঙ্গলের ভেতর বাংলোয় থাকার সুযোগ মেলে না। তবে এই বছর গরুমারা বন্যপ্রাণ বিভাগের অধীন কালীপুর জঙ্গল ক্যাম্প, ধূপঝোরা ইকো টুরিজম রিসর্ট, পানঝোরা জঙ্গল ক্যাম্প, লাটাগুড়ি হর্নবিল রিসর্ট এবং বক্সা ব্যাঘ্র সংরক্ষণ প্রকল্পের রাজাভাতখাওয়া প্রকৃতি পর্যটনকেন্দ্র, জয়ন্তী এবং সান্তালাবাড়ি থেকে বক্সা দুর্গ, পোরো ইকো পার্ক এবং সিকিয়াঝোরা ইকো টুরিজম সেন্টার খোলা থাকবে। এ প্রসঙ্গে রবিকান্ত সিনহা জানান, লকডাউনে পর্যটনকেন্দ্রগুলি বন্ধ থাকায় রাজস্ব আদায় বন্ধ রয়েছে। তবে কিছু নিয়ম শিথিল করায় এই তিনমাস ইকো টুরিজম কেন্দ্রগুলি খোলা হচ্ছে। যদিও এলাকায় করোনা সংক্রামিতের খোঁজ মিললে বা কনটেনমেন্ট জোন ঘোষণা করা হলে কেন্দ্রগুলি বন্ধ করা হবে।

- Advertisement -