কয়লাকাণ্ডে কলকাতার একাধিক জায়গায় ইডির অভিযান

112

কলকাতা: কয়লাকাণ্ডের টাকা পাচারের উৎস সন্ধানে শনিবার কলকাতার চারটি জায়গায় অভিযান চালায় ইডির আধিকারিকেরা। তাদের সঙ্গে ছিলেন কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানেরা। যেসব জায়গায় এদিন তারা অভিযান চালান তারমধ্যে অন্যতম ছিল পার্ক স্ট্রিটের ১১৯ নম্বর বাড়ি হোয়াইট হাউসের বানসাল সুপার ও বিএমডব্লিউর অফিসে। কলকাতার মল্লিক বাজারের কাছে অবস্থিত এই বাড়িটিতে এনফোর্সমেন্ট অফিসারেরা ঢোকার সঙ্গে সঙ্গে সেখানকার ডিরেক্টর ও কর্মচারীদের অফিসের মধ্যে আটকে রাখা হয়। বাইরে মোতায়েন থাকেন কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানেরা।

ইডির অপর একটি দল হানা দেয় ডালহৌসির ইন্ডিয়া এক্সচেঞ্জ প্লেসের সেটিয়া হাউসের ষষ্ঠ তলায় একটি ট্রাভেল এজেন্সি অফিসে। এছাড়া পার্ক স্ট্রিটের মিডলটন স্ট্রিটের অপর একটি অফিসে এদিন অভিযান চালানো হয়। ওই অভিযানের ব্যাপারে ইডির অফিসারেরা মুখ খুলতে রাজি না হলেও জানা গিয়েছে, কয়লার টাকা পাচার কাণ্ডের সূত্র অনুসন্ধানের জন্যই ওই অভিযান চালানো হয়েছে।

- Advertisement -

প্রসঙ্গত, ওই একই কাণ্ডের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গত ১ সেপ্টেম্বর তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্ত্রী রুজিরা নারুলা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ইডির  গোয়েন্দারা দিল্লির দপ্তরে ডাকেন। কিন্তু তিনি হাজিরা দেননি। উলটে একটি বার্তা পাঠিয়ে তিনি ইডির কর্তাদের জানিয়ে দেন, তার দুটি ছোট ছোট মেয়ে রয়েছে। তাই করোনাকালে তার পক্ষে দিল্লিতে গিয়ে তাদের দপ্তরে হাজিরা দেওয়া সম্ভব নয়। সুতরাং তারা যেন তাঁকে কলকাতা দপ্তরে অথবা হরিশ মুখার্জি স্ট্রিটে তাদের বাড়ি শান্তিনিকেতনে এসে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। তাঁর এই চিঠির ব্যাপারে এনফোর্সমেন্টের কর্তারা এখনও সিদ্ধান্ত নেয়নি। তবে, আগামী ৬ সেপ্টেম্বর অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দিল্লিতে ডেকে পাঠিয়েছেন। সেই সঙ্গে বিভিন্ন দিনে ডেকে পাঠানো হয়েছে রাজ্য ক্যাডারের ২  আইপিএস অফিসার ও অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘনিষ্ঠ এক আইনজীবীকে।