এক দেশ এক ভোটের পক্ষে সওয়াল মুখ্য নির্বাচন কমিশনারের

235

নয়াদিল্লি: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বারবার এক দেশ, এক ভোটের কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রীর দাবিকে কার্যত সিলমোহর দিয়ে দেশের মুখ্য নির্বাচন কমিশনার সুনীল অরোরা সোমবার একটি বেসরকারি সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেন, নির্বাচন কমিশন এক দেশ, এক ভোট করাতে প্রস্তুত। আইনসভায় যদি সমস্ত সংশোধনী পাশ হয়ে যায়, তাহলে আমরা এই কাজটি করতে তৈরি। তবে অরোরা জানিয়েছেন, এব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা নির্বাচন কমিশনের নেই।

২০১৪ সালে ক্ষমতায় আসার পর থেকে একাধিকবার এক দেশ, এক ভোটের পক্ষে সওয়াল করেছেন প্রধানমন্ত্রী। তাঁর যুক্তি, প্রতিবছর কোনও না কোনও রাজ্যে কোথাও না কোথাও ভোট হলে যে বিপুল পরিমাণ অর্থ এবং সময় খরচ হয় তাতে দেশের উন্নয়ন ব্যাহত হয়। সেকারণে একসঙ্গে সমস্ত ভোট করানো দরকার। বিরোধীরা অবশ্য এই যুক্তি মানতে নারাজ। নির্বাচন কমিশন প্রস্তুত বলে জানিয়ে দেওয়ায় কেন্দ্রের সুবিধা হল বলে মনে করা হচ্ছে।

- Advertisement -

আগামীবছর পশ্চিমবঙ্গ, অসম, তামিলনাড়ু, কেরল সহ পাঁচ রাজ্যে বিধানসভা ভোট। ২০২২ সালে পঞ্জাব, উত্তরপ্রদেশে নির্বাচন। ২০২৩ সালে রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশ, ছত্তিশগড়, ত্রিপুরার মতো কয়েটি রাজ্যে ভোট হওয়ার কথা। একসঙ্গে সমস্ত রাজ্যে ভোট করানোর অর্থ কোনও বিধানসভার মেয়াদ কমাতে হবে আবার কোথাও বাড়াতে হবে। তার জন্য সংবিধানে সংশোধনী আনা প্রযোজন। লোকসভায় য়েহেতু সংখ্যাগরিষ্ঠতা রয়েছে, সেহেতু ওই সংশোধনীগুলি আনা বিজেপির পক্ষে অসুবিধাজনক নয়। রাজ্যসভাতেও শক্তি বেড়েছে বিজেপির। কাজেই সংশোধনী পাস করানো বিজেপির পক্ষে খুব কঠিন হবে।

উল্লিখিত সাক্ষাৎকারে পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচনি পরিস্থিতি নিয়ে মন্তব্য করেছেন মুখ্য নির্বাচন কমিশনার। তিনি বলেন, যথাসময়ে ভোট করানোর জন্য কমিশনের আধিকারিকরা কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের সঙ্গে নিরাপত্তার ব্যাপারে কথা বলছেন। কবে কী পরীক্ষা রয়েছে, তার দিনক্ষণ জানার জন্য শিক্ষা বোর্ডগুলির সঙ্গে আলোচনা চলছে। ডেপুটি নির্বাচন কমিশনার রাজ্যে ঘুরে ঘুরে সমস্ত জেলার প্রশাসনিক কর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করেছেন। আগামীবছরের বিধানসভা ভোটের নির্বাচনি প্রস্তুতি জোরকদমে চলছে।

পশ্চিমবঙ্গে অবিলম্বে নির্বাচনি আচরণবিধি জারি এবং আধাসেনা মোতায়েনের ব্যাপারে বিজেপির দাবির ব্যাপারে মুখ্য নির্বাচন কমিশনার বলেন, ডেপুটি নির্বাচন কমিশনারের রিপোর্ট দেখে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে করানোর ব্যাপারে অরোরার বক্তব্য, এব্যাপারে তাঁরা কোনও নিশ্চয়তা দিতে না পারলেও অতীতে অবাধ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন করানোর ব্যাপারে কমিশন সফল হয়েছিল। ঈশ্বরের আশীর্বাদে তাঁরা আগামীদিনেও সফল হবেন।