শালকুমারহাট ও বিডিও অফিসে বিদ্যুৎ বিল গ্রহণ কেন্দ্র চালু হচ্ছে

322

সুভাষ বর্মন, শালকুমারহাট: আলিপুরদুয়ার-১ ব্লকের শালকুমারহাটে দীর্ঘদিনের দাবি পূরণ হতে চলেছে। খুব শীঘ্রই শালকুমার-২ গ্রাম পঞ্চায়েত দপ্তর ও বিডিও অফিসে দুটি বিদ্যুৎ বিল গ্রহণ কেন্দ্র চালু হচ্ছে। এই খবরে খুশি এলাকার কয়েক হাজার বিদ্যুৎ গ্রাহক।

এক সময় শালকুমারহাটের কয়েক হাজার বিদ্যুৎ গ্রাহককে বিদ্যুৎ বন্টন সংস্থার ফালাকাটার অফিসে এসে বিদ্যুতের বিল জমা দিতে হত। এজন্য সমস্যায় পড়তেন প্রত্যন্ত এলাকার গ্রাহকরা। এক বছর আগে মেজবিলে একটি বিদ্যুৎ বন্টন সংস্থার সাব-অফিস চালু হয়। এদিকে স্থানীয়রা বহুদিন থেকে শালকুমারহাটে বিদ্যুৎ বিল গ্রহণ কেন্দ্র চালুর দাবি জানিয়ে আসছেন। জনপ্রতিনিধিদেরও বারবার বিষয়টি জানানো হয়।

- Advertisement -

সূত্রের খবর, করোনা পরিস্থিতির আগেই শালকুমার-২ গ্রাম পঞ্চায়েত দপ্তরে বিদ্যুৎ বিল গ্রহণ কেন্দ্র চালু করার উদ্যোগ নেওয়া হয়। একইভাবে আরেকটি কেন্দ্র চালু করার কথা ছিল আলিপুরদুয়ার-১ বিডিও অফিসে। এদিকে উদ্যোগ নেওয়ার পরও কেন কেন্দ্র দুটি চালু হচ্ছে না সেই প্রশ্ন তোলেন গ্রাহকরা। তাঁরা বিষয়টি বিধায়ক সৌরভ চক্রবর্তীকে জানান। এরপর সৌরভ বাবু এই নিয়ে উদ্যোগী হন। বিধায়কের চেষ্টায় চলতি মাসেই এই দুটি বিদ্যুৎ বিল গ্রহণ কেন্দ্র চালু হতে চলেছে বলে জানা গিয়েছে।

এই প্রসঙ্গে সৌরভ চক্রবর্তী বলেন, ‘আলিপুরদুয়ার-১ ব্লকের শালকুমারহাট সহ প্রত্যন্ত এলাকার বাসিন্দাদের এতদিন মেজবিল, ফালাকাটা কিংবা আলিপুরদুয়ার শহরে এসে বিদ্যুৎ বিল জমা দিতে হত। এজন্য হাজার হাজার মানুষ সমস্যায় পড়েন। সম্প্রতি বাসিন্দারা বিষয়টি আমাকে জানান। এরপর আমি শালকুমারহাটের গ্রাহকদের জন্য শালকুমার-২ অঞ্চল অফিসে এবং ব্লকের অন্যান্য প্রান্তের বাসিন্দাদের জন্য বিডিও অফিসে বিদ্যুৎ বিল গ্রহণ কেন্দ্র দ্রুত চালুর বিষয়ে রাজ্যের বিদ্যুৎ মন্ত্রীকে চিঠি দিই। এই বিষয়ে রাজ্য স্তর থেকে সবুজ সংকেত এসেছে। দুটি জায়গায় মেশিনপত্রও বসেছে। চলতি মাসেই এই দুটি বিদ্যুৎ বিল গ্রহণ কেন্দ্রের উদ্বোধন হবে।’ এই খবরে খুশি এলাকার বাসিন্দারা।

শালকুমারহাটের তুষারকান্তি রায় বলেন, ‘এতদিন বহু দূরে গিয়ে বিদ্যুৎ বিল জমা দিতে হত। সঠিক সময়ে বিল দিতে না পারায় অনেকের জরিমানাও হত। এখন এই বিদ্যুৎ বিল গ্রহণ কেন্দ্র চালু হলে এলাকার মানুষের ভোগান্তি কমবে। এজন্য আমরা খুশি।’ আলিপুরদুয়ার-১ পঞ্চায়েত সমিতির বিদ্যুৎ কর্মাধ্যক্ষ হরিপ্রসাদ রায় বিধায়ককে ধন্যাবাদ জানিয়ে বলেন, ‘বিধায়কের উদ্যোগেই এই দাবি পূরণ হতে চলেছে। শালকুমার-২ ও বিডিও অফিসে সব পরিকাঠামো প্রস্তুত রয়েছে। দ্রুত দুটি বিদ্যুৎ বিল গ্রহণ কেন্দ্র চালু হচ্ছে। আগামী মাস থেকে এই কেন্দ্রেই এলাকার গ্রাহকরা বিদ্যুৎ বিল জমা দিতে পারবেন।’