রাঙ্গালিবাজনা : কখন হামলা হয় তার ঠিক নেই। সন্ধ্যা হলেই হাতি যেভাবে বাড়ি বাড়ি হানা দিচ্ছে, তাতে পুজো মণ্ডপে হানা না দেওয়ার কোনও গ্যারান্টি নেই। তাই, ঘোর চিন্তায় আছেন মাদারিহাট ও ফালাকাটা ব্লকের বন লাগোয়া পুজো কমিটিগুলির কর্মকর্তারা।  তবে, হাতির ভয়ে পুজো হবে না, তা তো হয় না। তাই, মণ্ডপ পাহারা দিতে বিশেষ টিম থাকবে বলে জানিয়েছে ফালাকাটার উত্তর দেওগাঁওয়ের দ্রুতগামী সংঘ। ওই ক্লাবের পুজো পরিচালন কমিটির সদস্য প্রণবকুমার দেবকার্জি বলেন, ‘ক্লাবের সদস্যরাই দল গঠন করেছেন। তাদের দয়িত্ব হল মণ্ডপের ধারেকাছে যাতে হাতি না আসে, তা নিশ্চিত করা।’

মাদারিহাটের রবীন্দ্রনগরের পুজো কমিটির সভাপতি জওহরলাল সাহা বলেন, ‘হাতি নিয়ে চিন্তা তো আছেই । দু’দিন আগেও জাতীয় সড়ক পেরিয়ে জলদাপাড়া জাতীয় উদ্যান থেকে বেরিয়ে হাতির দল মাদারিহাটে ঢোকার চেষ্টা করলে তাদের বনে ফেরত পাঠান বনকর্মীরা। তার আগে ২৭ সেপ্টেম্বর  পাকা রাস্তা দিয়ে দেড় কিমি হেঁটে মাদারিহাটে ঢুকে পড়ে একটি দলছুট দাঁতাল। তাই আমরা ঠিক করেছি, দশ বারোজন সদস্যের একটি দল গঠন করা হবে। তাঁরা নজর ও খবরাখবর রাখবেন হাতির ওপর। প্রয়োজনে, এক পুজো কমিটি আর একটিকে হাতি সম্পর্কে খবরাখবর দেবে।’

প্রসঙ্গত, জলদাপাড়া জাতীয় উদ্যানঘেঁষা মাদারিহাট । সেখানে যে কোনো সময় জলদাপাড়া থেকে বেরিয়ে হাতি ঢুকে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। এছাড়া,  বারো মাইল, বর্মনপাড়া, ছেকামারি, বড় টাওয়ার, কলোনিপাড়া, এমএলএর হাট, ফালাকাটার দেওগাঁওয়ের  গোবিনহাট, কার্জিপাড়া  সহ এমন অনেক জায়গা রয়েছে যেগুলি হাতি উপদ্রুত। সেগুলিতেও পুজো হচ্ছে। পুজো কমিটির কর্মকর্তাদের অনেকেরই বক্তব্য, পুজোর সময় মাইক বাজবে। তাই, আশেপাশে হাতির হানা হলে চিৎকার করলেও শোনা যাবে না। আবার, কেউ পুজো উপলক্ষ্যে বাজি ফাটালেও অনেকেই হাতি ঢুকেছে বলে আতঙ্কিত হতে পারেন। মধ্য ছেকামারি পুজো কমিটির সভাপতি সুনীতা রায় বলেন, ‘আমরা মহিলারাই পুজো পরিচালনার দায়িত্বে আছি। রাতে মণ্ডপে থাকতে হবে আমাদেরই। কিন্তু, এলাকায় প্রতি রাতে যেভাবে হাতি হানা দিচ্ছে তাতে মণ্ডপে থাকা বিপজ্জনক বলে মনে হচ্ছে।’

বনদপ্তরের মাদারিহাটের রেঞ্জার খগেশ্বর কার্জি বলেন, ‘নিয়মিত টহলদারির পাশাপাশি পুজোর সময় বিশেষ টহল চলবে । তবে, পুজো মণ্ডপে ভিড় থাকলে হাতির হানার  ভয় কম। বরং ফাঁকা রাস্তায় হাতি আসতে পারে। তাই, যাতায়াতের রাস্তাগুলিতে বিশেষ নজরদারি চালানো হবে।’

ছবি- ফালাকাটা ব্লকের উত্তর দেওগাঁওয়ের কার্জিপাড়ার মাঠে হাতি তাড়াতে প্রস্তুত দ্রুতগামী সংঘের সদস্যরা।

তথ্য ও ছবি- মোস্তাক মোরশেদ হোসেন