হাতির হানায় ক্ষতিগ্রস্ত ভুট্টাখেত

303

মোস্তাক মোরশেদ হোসেন, রাঙ্গালিবাজনা: হাতির হানায় ক্ষতিগ্রস্ত হল ভুট্টাখেত। শুক্রবার রাতে হাতির হানায় ক্ষতিগ্রস্ত হয় আলিপুরদুয়ার জেলার মাদারিহাট বীরপাড়া ব্লকের রাঙ্গালিবাজনা গ্রাম পঞ্চায়েতের হরিপুর ও চাঁপাগুড়ি গ্রামের বিস্তীর্ণ এলাকার ভুট্টাখেত।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ধূমচী বনাঞ্চল থেকে বেরিয়ে একপাল হাতি হানা দেয় চাঁপাগুড়ি গ্রামে। সেখানে ৮ থেকে ১০ বিঘা জমিতে চাষ করা ভূট্টা নষ্ট করে দেয় হাতির পালটি।

- Advertisement -

ক্ষতিগ্রস্ত চাষিদের মধ্যে আতাবুল হক বলেন, ‘প্রায় ২৫টি হাতি ছিল। আমার সর্বনাশ হয়ে গেল। আজ থেকে ফসল ঘরে তোলার কথা ছিল। কিন্তু তার আগেই বেশিরভাগ ভূট্টা হাতির পেটে গেল।’

আরও পড়ুন: ঝড়ে ঘর ভেঙেছে, সমস্যায় বাসিন্দারা

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, আতাবুল সহ বেশ কয়েকজন ভূট্টা চাষি হাতির হানায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। এরপর স্থানীয় বাসিন্দারা দল বেঁধে হাতির পালটিকে হরিপুর এলাকার দিকে তাড়িয়ে দেন।

হরিপুর এলাকার বাসিন্দা অর্পন ছেত্রী বলেন, ‘আমার ও কাঞ্চা ছেত্রীর ভূট্টাখেত, প্রীতম মঙ্গরের কলাবাগান, উত্তম মঙ্গরের সুপারি বাগান তছনছ করে দেয় হাতির পালটি।’ ধূমচী বনাঞ্চল সংলগ্ন ওই ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাগুলির বাসিন্দারা জানান, বছরভর উৎপাদন করা ফসলের বেশিরভাগই যাচ্ছে হাতির পেটে। ধান, ভূট্টাতো বটেই সুপারি গাছও নষ্ট করছে হাতির পাল। এছাড়া এক বনাঞ্চল থেকে আর এক বনাঞ্চলে যাওয়ার পথে মাড়িয়ে নষ্ট করে দিচ্ছে পাটখেতগুলি। গতকাল রাতেও পাটখেতগুলি নষ্ট হয়েছে।

এই বিষয়ে বনদপ্তরের মাদারিহাট রেঞ্জের ধূমচীর বিট অফিসার পিনাকি ভট্টাচার্য বলেন, ‘হাতির হানায় ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাগুলি পরিদর্শন করা হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্তরা সরকারি নিয়ম মেনে ক্ষতিপূরণ পাবেন।’