দাঁতালের উপদ্রবে অতিষ্ট সাধারণ মানুষ

33

নাগরাকাটা: একদিকে করোনার আগ্রাসন। অন্যদিকে গোঁদের ওপর বিষ ফোঁড়ার মত নাগরাকাটার নানা এলাকা জুড়ে হাতির হানাদারি। বৃহস্পতিবার রাতে এক দলছুট দাঁতালের হানায় ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে ৭ টি বাড়ি ও ১ টি দোকান। ঘটনাগুলি ব্লকের খাসবস্তী ও বামনডাঙ্গা চা বাগানের। সব মিলিয়ে দুর্বিপাকে প্রত্যন্ত এলাকার আম আদমি। অন্যদিকে করোনায় আক্রান্ত হয়ে বা বাড়িতে করোনা রোগি থাকার কারণে বনকর্মীর সংখ্যা কম খুনিয়া রেঞ্জে। স্থানীয় ও বন দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে , বৃহস্পতিবার গভীর রাতে একটি দলছুট হাতির হানায় জলঢাকার জঙ্গল লাগোয়া খাস বস্তীতে ক্ষতিগ্রস্থ হয মোট ৭ টি বাড়ি। যার মধ্যে শুক্রা ওরাওঁ নামে এক ব্যক্তির বাড়ি মাটিতে ধুলিশাৎ করে দেয় দাঁতালটি। শুক্রা বলেন, ‘দ্রুত সরকারী সাহায্য না পেলে কিভাবে ঘুরে দাঁড়াবো জানা নেই। দিন মজুরির কাজ করে যা হত সেই কাজও করোনার কারনে এখন জুটছে না।‘ অন্যদিকে বামনডাঙ্গা চা বাগানের ফ্যাক্টরির সামনে অবস্থিত দীর্ঘদিনের একটি ক্যান্টিনও গুঁড়িয়ে দেয় হাতিটি।

রেঞ্জার রাজকুমার লায়েক বলেন, ‘সমস্যা থাকা সত্ত্বেও পরিষেবা প্রদানের ক্ষেত্রে যাতে কোন ত্রুটি না থাকে সেই প্রচেষ্টায় কোনও খামতি নেই। এমন পরিস্থিতিতে যৌথ বন পরিচালন সমিতিগুলির কাছ থেকে আরও বেশী সহযোগিতা কাম্য। বিশেষ করে খাস বস্তী ও সুখানী বস্তী এলাকা থেকে। বৃহস্পতিবার রাতে যে হাতিটি হামলা চালিয়েছে সেটির গতিবিধির প্রতি সতর্ক নজর রাখা হচ্ছে।‘ অন্যদিকে বছরভরের হাতির উপদ্রবে এই এলাকার বাসিন্দাদের রাতের ঘুম বহু আগেই উড়ে গিয়েছে এমনটায় দাবি স্থানীয়দের।

- Advertisement -