মদ কিনতে ভিড় নেই ইসলামপুরে

238

তপন কুমার বিশ্বাস, ইসলামপুর: লকডাউনের কারণে এক মাসেরও বেশি সময় ধরে সারা রাজ্যের মতো ইসলামপুর মহকুমাতেও বিভিন্ন মদের দোকান বন্ধ ছিল। গত মঙ্গলবার মদের দোকান খোলার পরই মদের দোকানে ভিড় জমান মদ্যপায়ীরা। ভিড় সামলাতে হিমসিম খেতে হচ্ছিল দোকানমালিকদের। শুধু তাই নয় ভিড় সামলাতে বিভিন্ন এলাকাতে নামানো হয়েছিল পুলিশও। অধিকাংশ মদের দোকানের সামনে দেওয়া হয়েছিল বাঁশের ব্যরিকেড। এরপর ক’দিন ঘুরতে না ঘুরতেই তাল কেটেছে সুরাপায়ীদের। দোকান খোলার পর দুদিন পর্যন্ত টুঙ্গিদিঘি, ডালখোলা, কানকি, পাঞ্জিপাড়া, ইসলামপুর, চোপড়াসহ অন্য জায়গায় মদের দোকানের সামনে ভিড় থাকলেও এরপর থেকে ভিড় কমতে শুরু করে। শনিবার দুপুরই অধিকাংশ মদের দোকান ছিল ফাঁকা। রবিবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি।

ডালখোলার এক মদের দোকানের মালিক জানান, ‘বুধবার পর্যন্ত কিছুটা ভিড় থাকলেও তারপর থেকে ভিড় কমতে শুরু করে। এদিন খদ্দের ছিল হাতেগোনা। তাছাড়া চাহিদাও কমেছে।’ অনেকেই মনে করছেন মাসাধিককাল মদের দোকান বন্ধ থাকায় দোকান খুলতেই ভিড় ভেঙে পড়ে। কিন্তু সেই ভিড় ফিকে হয়ে গিয়েছে। কারন হিসাবে লকডাউনের সময় হাতে যথেষ্ট টাকা না থাকায় এমনটা হয়েছে বলে অনুমান। ক্রেতাবিক্রেতা উভয়েই স্বীকার করেছেন সেই কথা। লকডাউনের কারণে কাজ নেই এক মাসেরও বেশি সময় ধরে। ফলে সাধারণ মানুষের হাতে টাকাও নেই। ফলে ইচ্ছে থাকলেও মদের দোকানের সামনে লাইন দিতে পারছেন না অনেকেই। খাস ইসলামপুর শহরেও মদের দোকানেও ভিড় কম। কেউ বলছেন, এখন বাড়ি থেকে বেরোনো বন্ধ। বন্ধুদেরও ডাকা যাচ্ছে না। তাই মদ খাওয়ার ইচ্ছে কমছে। বাড়িতে বাচ্চাদের সামনে মদ খেতে চাইছেন না অনেকেই।

- Advertisement -

এইসময় চাল কিনলেও আনাজ কেনার মত টাকা নেই অনেকেরই। সেখানে মদ্যপান যেন বিলাসিতা। তাছাড়া, মদের দামের উপর ৩০ শতাংশ কর বেড়ে গেছে ফলে ৫২০ টাকার মদ ৬৭৬ টাকায় কিনতে হচ্ছে। ফলে সাধ থাকলেও সাধ্য নেই অনেক সুরাপায়ীর। অনেকেই আবার ঝুকছেন সেই চোলাইয়ের দিকে। ইসলামপুর মহকুমা আবগারি দপ্তরের আধিকারিক আবুল মাসুদ বলেন, ‘ইসলামপুর মহকুমাজুড়ে মদের দোকানগুলিতে আমাদের নজরদারি চলছে। কিন্ত কোথাও সেভাবে ভিড় লক্ষ্য করা যাচ্ছে না।’