বাটলারদের বিদ্রোহের পরামর্শ পিটারসনের

লন্ডন : আগে দেশ। তারপর আইপিএল।

ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড যে নীতিতে পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছে, বাকি আইপিএলে ছাড়া হবে না ক্রিকেটারদের। জাতীয় দলের হয়ে দায়িত্বই অগ্রাধিকার পাবে। অর্থাৎ, স্থগিত মেগা লিগ যদি ফের শুরুও হয়, তাহলে দেখা যাবে না জস বাটলার, ইয়োন মরগ্যান, জনি বেয়ারস্টো সহ একঝাঁক ইংরেজ তারকাকে।

- Advertisement -

কেভিন পিটারসন যদিও ক্রিকেটারদের ওপর এই চাপিয়ে দেওয়ার ভাবনার প্রবল বিরোধী। একদা ইসিবির নির্দেশ উপেক্ষা করে আইপিএলে খেলে বিতর্কের ঝড় তুলেছিলেন। সেই পিটারসনই চান, প্রয়োজনে বাটলার-বেয়ারস্টোররা সংঘবদ্ধ হয়ে বোর্ডের নির্দেশিকার বিরোধিতা করুক। আইপিএলে ইংল্যান্ডের প্রায় সব প্রথমসারির খেলোয়াড় মেগা লিগে খেলে থাকে। তাই বাটলাররা জোট বাঁধলে ইসিবির পক্ষে আটকানো সহজ হবে না।

সোশ্যাল মিডিয়ায় পিটারসন লিখেছেন, আমি দেখার জন্য মুখিয়ে রয়েছি, ইসিবি কিভাবে দেশের সেরা ক্রিকেটারদের আইপিএল খেলা থেকে আটকায়। ২০০৯-এ আমি বোর্ডের বিরুদ্ধে গিয়ে আইপিএলে খেলেছিলাম। তখন ইংল্যান্ড ক্রিকেটার হিসেবে আমি একা ছিলাম। এখন তো ইংল্যান্ডের প্রায় সব সেরা ক্রিকেটাররা খেলছে। ওরা যদি সংঘবদ্ধ হয়, তাহলে ইসিবির পক্ষে আটকানো সম্ভব হবে না।

ইংল্যান্ড ক্রিকেটে বোর্ডের ডিরেক্টর অ্যাশলে জাইলস ইতিমধ্যেই জানিয়েছেন, ভরাসূচির মধ্যে আইপিএলের জন্য তারা ক্রিকেটার ছাড়বেন না। একই পথে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডও। কিউয়ি বোর্ডের মতে, সেপ্টেম্বরে পাকিস্তান ও আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে টানা সিরিজ রয়েছে। ফলে সেপ্টেম্বরে আইপিএলের বাকি ম্যাচ হলেও, উইলিয়ামসনদের খেলার অনুমতি দেওয়া হবে না।

এদিকে, চলতি সপ্তাহান্তেই মালদ্বীপ থেকে ইংল্যান্ডে রওনা দেবেন কেন উইলিয়ামসন, মিচেল স্যান্টনার, কাইল জেমিসন ও ফিজিও টমি সিমসেক। চারজনই আপাতত দ্বীপরাষ্ট্রে আইসোলেশনে আছেন। ২ জুন ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে জোড়া টেস্টের সিরিজ খেলবে নিউজিল্যান্ড। তারপর ১৮ জুন থেকে ভারতের বিরুদ্ধে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ ফাইনাল রয়েছে কিউয়িদের।