নেওড়া নদীর ভাঙনে কুমারপাড়ার ঘুম উড়েছে

শুভদীপ শর্মা, ময়নাগুড়ি : নেওড়া নদীর ভাঙনে ময়নাগুড়ি ব্লকের কুমারপাড়ায় বাসিন্দাদের রাতের ঘুম উধাও হয়ে গিয়েছে। দীর্ঘ কয়েক বছর থেকে নেওড়ার ভাঙনে বাড়ি, রাস্তা ও কয়েক বিঘা জমি তলিয়ে গিয়েছে। বারবার প্রশাসনকে জানিয়ে কোনও লাভ হয়নি। এই ঘটনায় গ্রামের মানুষ ক্ষোভে ফুঁসছেন। যদিও ময়নাগুড়ির বিধায়ক অনন্তদেব অধিকারী জানান, ভাঙনের বিষয়টি তাঁর জানা নেই, তাই তিনি এই বিষয়ে কোনও মন্তব্য করবেন না।

গত কয়েক বছর ধরে ভাঙন শুরু হয়েছে কুমারপাড়ায় নেওড়া নদীতে। ভাঙনে এলাকার কয়েক বিঘা জমি নদীগর্ভে তলিয়ে গিয়েছে। তবে চাষের জমি চলে গিয়ে যত না সমস্যা হয়েছে, তার থেকে বেশি সমস্যা হয়েছে নদীভাঙনে গ্রামে ঢোকার একমাত্র রাস্তা তলিয়ে যাওয়ায়। শুধু বর্ষা নয়, বর্তমানেও অল্প অল্প করে ওই এলাকায় ভাঙন অব্যাহত। স্থানীয় বাসিন্দা রবীন্দ্রনাথ রায়, স্বপন সরকার, গোকুল বিশ্বাস অভিযোগ করেন, গ্রামে ঢোকার একমাত্র রাস্তা নদীভাঙনে তলিয়ে যাওয়ায় বেশ কিছুদিন যাতায়াত বন্ধ ছিল। অবশেষে স্থানীয় বাসিন্দা স্বপন সরকার নিজের চা বাগান তুলে রাস্তা তৈরির জমি দিলে গ্রামবাসীরা রাস্তা পান। তবে এখন চা বাগান কেটে গড়ে তোলা রাস্তাও ভাঙনের কবলে। বর্তমানে যে পরিস্থিতি তাতে শুধু রাস্তাই নয়, ভাঙনে গ্রামের বেশ কয়েকটি বাড়িও তলিয়ে গিয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দা সুবোধ বিশ্বাস, রামহরি কবিরাজের বাড়ি গত কয়েক বছর আগেই নদীগর্ভে তলিয়ে গিয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দা পবিত্রকুমার রায়, অশ্বিনী সরকার জানান, পুষ্পনাথ রায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কয়েক বিঘা জমিও নদীগর্ভে তলিয়ে গিয়েছে।

- Advertisement -

স্থানীয়দের অভিযোগ, বারবার প্রশাসনের দ্বারস্থ হয়ে ভাঙন মোকাবিলায় ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়ে লাভ হয়নি। প্রশাসন বারবার আশ্বাস দিয়েছে। মাঝে একবার সেচ দপ্তরের তরফে এলাকার ভাঙন রোধে সমীক্ষাও হয়েছে। তারপর আর কিছুই হয়নি। দোমোহনি-২ গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান কল্যাণী রায় ভাঙনের কথা স্বীকার করে নিয়ে বলেন, ভাঙন সত্যি সমস্যার বিষয়। দ্রুত এই ভাঙন রোধে কাজ হওয়া প্রয়োজন। ময়নাগুড়ি পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য মনোজ রায় জানান, রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় সেচমন্ত্রী থাকাকালীন বিষয়টি তাঁরা তাঁকে জানিয়েছিলেন। তারপর সেচ দপ্তর এলাকা পরিদর্শনে যায়। কাজটি কেন আটকে আছে তা দেখার আশ্বাস দেন তিনি। ময়নাগুড়ি সেচ দপ্তরের আধিকারিক সমীরকুমার বর্মন জানান, বিষয়টি তাঁর জানা নেই। ভাঙনের বিষয়ে খোঁজ নিয়ে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।