৩৬ ঘণ্টা পরেও মেলেনি শ্বশুরের মৃতদেহ, ধর্নায় পুত্রবধূ

75

রায়গঞ্জ: পেড়িয়ে গিয়েছে ৩৬ ঘণ্টা। মৃতদেহ পড়ে রয়েছে রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল মর্গে। স্বাভাবিকভাবেই দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করেও মৃতদেহ না পেয়ে হাসপাতাল সুপারের দপ্তরের সামনে ধর্নায় বসলেন মৃতের পুত্রবধূ। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের ভূমিকায় প্রশ্ন তুলে ধরেন তিনি। যদিও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সাফাই করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট হাতে না আসা অবধি মৃতদেহ হস্তান্তর করা যাবে না।

পুলিশ ও পরিবার সূত্রে খবর, গতকাল সকালে রসাখোয়া এলাকার একটি স্কুলের বারান্দা থেকে রামনারায়ন রাজভরের মৃতদেহ উদ্ধার হয়। মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসাপাতালে পাঠায় করণদিঘী থানার পুলিশ। এরপর গতকালের ন্যায় আজ মঙ্গলবার সকাল থেকেই মৃতের পরিজনরা হাসপাতালের মর্গের সামনে পৌঁছোন। পরিবারের, অভিযোগ দিনভর অপেক্ষার পরেও ময়নাতদন্ত হয়নি। এমনকি হাসপাতালের তরফে মৃতদেহও ফিরিয়ে দেওয়া হল না।

- Advertisement -

মৃতের পুত্রবধূ সরিতা রাজভর বলেন, ‘করণদিঘি বিধানসভা কেন্দ্রে তৃণমূল প্রার্থী জয়লাভ করায় আমার শ্বশুর মিছিলে যোগ দিতে রসাখোয়া গিয়েছিলেন।‌ সেখানে প্রচুর পরিমাণ মদ খেয়ে তার মৃত্যু হয়। এরপর পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়। গতকাল থেকে মৃতদেহ পাওয়ার আশায় হাসপাতালের মর্গ চত্ত্বরে বসে রয়েছি। কিন্তু এখনও পর্যন্ত মৃতদেহ ফিরয়ে দেওয়া হয়নি আমাদের।’

রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজের সহকারী অধ্যক্ষ প্রিয়ঙ্কর রায় বলেন, ‘মৃতের লালারসের নমুনা পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে। রিপোর্ট এলেই ময়নাতদন্ত করা হবে। তবে পজেটিভ রিপোর্ট এলে মৃতদেহ পরিবারকে দেওয়া হবে না।’

করণদিঘী থানার আইসি সঞ্জীব সেনাপতি বলেন, ‘অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা রুজু করা হয়েছে। ঘটনা তদন্ত চলছে।’