মৃত্যুর পর ৩৬ ঘণ্টা কাটলেও মেলেনি দেহ, ধর্নায় পরিবার

87

রায়গঞ্জ: এক কিশোরীর মৃত্যুর ৩৬ ঘণ্টা অতিবাহিত হয়ে গেলেও দেহ পরিবারের হাতে না দেওয়ার অভিযোগ উঠল রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে। যদিও মেডিকেল কলেজ কর্তৃপক্ষের বক্তব্য, করোনার রিপোর্ট আসার পরই দেহ ময়নাতদন্ত করে পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হবে। মেডিকেল কলেজ সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃতার নাম লাকি পারভীন(১৪)। ইটাহার থানার সুরুল-১ গ্রাম পঞ্চায়েতের গোরাহার গ্রামের বাসিন্দা।

পুলিশ ও পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, চলতি মাসের ৪ তারিখ ভোররাতে রান্না করতে গেলে বাঁ হাতে বিষধর সাপ ছোবল দেয়। কিছুক্ষণের মধ্যেই জ্ঞান হারিয়ে ফেলে ওই কিশোরী। আশঙ্কাজনক অবস্থায় উদ্ধার করে রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে ভর্তি করলে তাঁর অবস্থার ক্রমশ অবনতি হওয়ায়। এরপর তাঁকে মেডিকেল কলেজের সিসিইউ বিভাগে স্থানান্তরিত করা হয়। এরপর বুধবার সকাল ৭টায় মৃত্যু হলেও ৩৬ ঘন্টা অতিবাহিত হয়ে যাওয়ার পরও মৃতদেহ না দেওয়ায় মর্গের সামনে ধর্নায় বসেছেন কিশোরীর পরিবার পরিজনেরা।

- Advertisement -

কিশোরীর বাবা সরিফ আলীর অভিযোগ, আমার মেয়ের মৃত্যুর দু’দিন হয়ে গেলেও এখনও পর্যন্ত দেহ ময়নাতদন্ত করে আমাদের হাতে দেওয়া হয়নি। যতক্ষণ না পর্যন্ত মৃতদেহ দেওয়া হচ্ছে ততক্ষণ পর্যন্ত মর্গ ক্যাম্পাসে ধর্নায় বসে থাকব। রায়গঞ্জ থানার পুলিশ আধিকারিক বলেন, ‘একটি অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা রুজু হয়েছে। যত দ্রুত সম্ভব দেহ ময়না তদন্ত করে পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হবে।’

সুরুন এক গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধানের স্বামী উত্তম দাস বলেন, ‘বুধবারই আমরা মৃতদেহ নেওয়ার জন্য গ্রাম পঞ্চায়েতের সার্টিফিকেট দিয়ে আবেদন করেছিলাম। কিন্তু মৃতদেহ আমাদের দেওয়া হয়নি। তৃণমূলের প্রধানের স্বামীর বক্তব্য, যত রাতই হোক না কেন আজকে মৃতদেহ দিতে হবে। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে তীব্র উত্তেজনা ছড়িয়েছে মেডিকেল কলেজ ক্যাম্পাসে।’