প্রতিশ্রুতি মিললেও হয়নি পাকা সেতু, ক্ষোভ স্থানীয়দের

144

হেলাপাকড়ি: প্রতিশ্রুতি মিললেও পাকাসেতু হয়নি। ফলে ক্ষোভে ফুঁসছেন ময়নাগুড়ি ব্লকের মাধবডাঙ্গা-২ গ্রাম পঞ্চায়েতের পাঠানেরডাঙা ও সরকার পাড়ার বাসিন্দারা। দীর্ঘদিন ধরেই স্থানীয় ধরলা নদীতে পাকাসেতুর দাবিতে সরব হয়েছেন তাঁরা। দুই গ্রামের মাঝখান দিয়ে প্রবাহিত ধরলা নদীর ওপর পাকাসেতু এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি। বাসিন্দাদের অভিযোগ, বিভিন্ন আধিকারিক ও নেতারা প্রতিশ্রুতি দিয়ে গেছেন। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। বিজয়চন্দ্র বর্মন জলপাইগুড়ির সাংসদ থাকাকালীন সেখানে পাকাসেতু তৈরির করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতিও দিয়েছেন। সেই কারণে সাংসদ কোটা থেকে ১ কোটি ৬ লক্ষ টাকা বরাদ্দের কথাও ঘোষণা করা হয়েছিল। তা সত্ত্বেও সেতু হয়নি। তাই দ্রুত ধরলা নদীতে পাকাসেতুর দাবি তুলেছেন দুই পাড়ের বাসিন্দারা।

স্থানীয় সুমিতা পাল বলেন, ‘নদীতে সারা বছরই জল থাকে। পারাপারের ভরসা বলতে দুর্বল বাঁশের সাঁকো। অন্য সময় সাঁকো পেরিয়ে কোনওরকমে দুই পাড়ের যোগাযোগ রক্ষা হলেও বর্ষায় সমস্যায় পড়তে হয়।’ স্থানীয় বাসিন্দা মতিলাল সরকার বলেন, ‘নদী পারাপার হতে গিয়ে মাঝে মধ্যেই দুর্ঘটনা ঘটছে। এর আগে সাঁকো থেকে পড়ে জলপাইগুড়ির এক বাসিন্দার মৃত্যু হয়েছে।’

- Advertisement -

প্রাক্তন সাংসদ তথা বর্তমান এসজেডিএ-র চেয়ারম্যান বিজয়চন্দ্র বর্মন বলেন, ‘সাংসদ থাকালীন ওই এলাকার মানুষ পাকা সেতুর দাবি রেখেছিলেন। আমি চেষ্টাও করেছিলাম। কিন্তু সেসময় সম্ভব হয়ে উঠেনি। ভোটের পর পাকা সেতু করে দেওয়ার চেষ্টা করা হবে।’ জলপাইগুড়ির সংসদ ডঃ জয়ন্ত রায় বলেন, ‘জেলার অনেকগুলি রাস্তা প্রধানমন্ত্রী গ্রাম সড়ক যোজনায় দেওয়া হয়েছে। তারমধ্যে কোনও সেতু বা কালভার্ট পড়লে সেটাও হবে। তবে, এখানে সরকার আলাদা থাকায় কিছু ক্ষেত্রে বাধা তৈরি হয়।’