অসমের মুখ্যমন্ত্রী পদের দৌড়ে এগিয়ে রঞ্জন গগৈ, মন্তব্য তরুণ গগৈয়ের

922

গুয়াহাটি: অসমের পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী পদের দৌড়ে এগিয়ে প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ। আর এমনই মন্তব্য করে বসলেন অসমের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তরুণ গগৈ। তিনি বলেন, ‘রঞ্জন গগৈয়ের রামমন্দির রায়ে বিজেপি বেজায় খুশি। তারই পুরস্কার হতে পারে অসমের মুখ্যমন্ত্রী পদ।‘ যদিও এই বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতার এহেন চাঞ্চল্যকর মন্তব্যের পাল্টা বিজেপি বা প্রাক্তন প্রধান বিচারপতির তরফে কোনওরকম প্রতিক্রিয়া মেলেনি।

এ প্রসঙ্গে তরুণ গগৈ বলেন, ‘আমার সূত্র মারফত খবর পেয়েছি রঞ্জন গগৈকে বিজেপি অসমের পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী করতে পারে। মুখ্যমন্ত্রী পদের দাবিদার হিসেবে তাঁর নাম তালিকায় রয়েছে।‘ তরুণ গগৈ আরও দাবি করেন, প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি যদি রাজ্যসভার সাংসদ হতে পারেন তাহলে মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী হওয়ার প্রস্তাবেও তিনি সায় দিতে পারেন।

- Advertisement -

এ প্রসঙ্গে অসমের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তরুণ গগৈ আরও বলেন, ‘সবই রাজনীতি। রঞ্জন গগৈয়ের রামমন্দির রায়ে খুশি বেজায় বিজেপি। এরপর তিনি ধীরে ধীরে রাজনীতিতে প্রবেশ করছেন। প্রথমে রাজ্যসভার সাংসদ হওয়ার জন্য রাজি হলেন। এরপর অসমের মুখ্যমন্ত্রী পদে বসতে পারেন তিনি।‘ একইসঙ্গে বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতার প্রশ্ন, ‘সাংসদ মনোনীত হওয়ার জন্য কেন রাজি হলেন রঞ্জন? তিনি তো সহজেই মানবাধিকার কমিশনের চেয়্যারম্যান হতে পারতেন। তাঁর রাজনৈতিক উচ্চাকাঙ্খা রয়েছে। তাই তিনি রাজ্যসভার সাংসদ হওয়ার প্রস্তাব মেনে নিয়েছেন।’

অন্যদিকে, জোড়হাটের প্রাক্তন বিধায়ক রানা গোস্বামী বলেন, ‘আমি তরুণ গগৈকে বলেছিলাম যে আজমল-লিড অল ইন্ডিয়া ইউনাইটেড ডেমোক্র্যাটিক ফ্রন্ট (এআইইউডিএফ)-এর সঙ্গে হাত মেলালেই কাজ হবে না। তবে যদি কোনও মহাজোট হয় তবে ভবিষ্যত একটু অন্যরকম হতে পারে।’

উল্লেখ্য, সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি ছিলেন রঞ্জন গগৈ। তাঁর আমলে দেশের একাধিক গুরুত্বপূর্ণ মামলার নিষ্পত্তি হয়েছে। তার মধ্যে অন্যতম দীর্ঘদিন ধরে চলে আসা অযোধ্যা রামমন্দির মামলা। প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ অযোধ্যার বিতর্কিত জমিতে রামমন্দির গড়ার পক্ষেই রায় দেন। এরপর থেকেই রঞ্জন গগৈকে নিয়ে একের পর এক বিতর্ক দানা বেধেছে। তিনি অসমের পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী হতে পারে বলে দাবি করলেন উত্তর পূর্বের এই রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী।