রেলের সরবরাহ করা জল আয়রনযুক্ত, বেলাকোবা রেল কলোনি এলাকায় চর্মরোগ

232

সুভাষচন্দ্র বসু, বেলাকোবা : রেলের জলপ্রকল্প থেকে সরবরাহ করা জল খেয়ে চর্মরোগে আক্রান্ত হওয়ার অভিযোগ তুলেছেন বেলাকোবা রেল কলোনির বাসিন্দারা। তাঁদের অভিযোগ, ওই জলে আয়রনের মাত্রা নির্ধারিত সীমার থেকে বেশি থাকায় তাঁরা বিভিন্ন চর্মরোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। ২০১৭ সালে ওই জলপ্রকল্পটি নির্মিত হয়। ওই জলের গুণমান নির্ধারণের জন্য কোনও পরীক্ষা করা হয়নি বলে দাবি বাসিন্দাদের। তাঁরা জানান, খাওয়ার কথা তো দূর, ওই জলে জামাকাপড় অবধি কাচা যায় না। নিউ জলপাইগুড়ির স্টেশন ডাইরেক্টর জানান, বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

কলোনির বাসিন্দা মঞ্জুদেবী বলেন, প্রায় ২০ বছর রেল কোয়ার্টারে আছি। এই জল ব্যবহার করে আমি চর্মরোগে আক্রান্ত। অপর বাসিন্দা কুসুমদেবীর অভিযোগ, বাধ্য হয়ে দূর থেকে রাজ্য সরকারের পিএইচই-র টাইমকল থেকে পানীয় জল আনি। কুযোর জল দিয়ে জামাকাপড় কাচা সহ ঘরের অন্যান্য কাজ করি। কলোনির বাসিন্দা অর্চনাদেবী বলেন, দূর থেকে পানীয় জল আনার লোক না থাকায় ত্রিশ টাকা দিয়ে কুড়ি লিটার জারবন্দি জল কিনতে বাধ্য হচ্ছি। জলপ্রকল্পের জল হাতে লাগালে চুলকানি হয়। কলোনির বাসিন্দা সিয়ারাম বারি বলেন, নির্মাণের শুরু থেকেই লাল জল সরবরাহ করা হচ্ছে। যা স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকারক। আমরা পরিস্রুত পানীয় জলের দাবি জানাচ্ছি।

- Advertisement -

এ সম্পর্কে অভিজ্ঞ কেমিস্ট শুভেন্দু মিত্র বলেন, ব্যুরো অফ ইন্ডিয়ান স্ট্যান্ডার্ড ও ফুড সেফটি অ্যান্ড স্ট্যান্ডার্ডস এর মান অনুসারে পানীয় জলে প্রতি লিটারে সর্বোচ্চ আয়রনের মাত্র ০.২ মিলিগ্রাম। এর বেশি হলে জলবাহিত রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। অভিজ্ঞ মাইক্রোবায়োলজিস্ট শুভদীপ গিরি বলেন, আয়রনের সর্বোচ্চ মাত্র ০.২ মিলিগ্রামের বেশি হলে চর্মরোগ, অ্যালার্জি, অ্যাজমা হয়। শরীরে ব্যাকটিরিয়া বৃদ্ধির জন্য অম্বল, ডায়াবিটিস যেমন হতে পারে, তেমনি লিভার, হার্ট, প্যানক্রিয়াস ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। এ সম্পর্কে নিউ জলপাইগুড়ির স্টেশন ডাইরেক্টর আর কে ঝা বলেন, বিষয়টি নিয়ে কেউ কোনও অভিযোগ করেনি। পানীয় জলের ব্যাপারটি গুরুত্ব দিয়ে দেখা হবে। যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সরেজমিনে তদারক করবেন বলে জানান।