বস্তা বন্দী যুবকের দেহ উদ্ধারকে ঘিরে চাঞ্চল্য

270

আসানসোল: বস্তা বন্দী যুবকের মৃতদেহ উদ্ধার হওয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে বুধবার সকালে আসানসোলের হিরাপুর থানার বার্নপুর নরসিংবাঁধ এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছান হিরাপুরে পুলিশের সিআই শিবনাথ পাল ও হিরাপুর থানার ওসি সোমেন্দ্র সিং ঠাকুর। পুলিশ বস্তা বন্দী সেই মৃতদেহ উদ্ধার করে আসানসোল জেলা হাসপাতালে পাঠায়।

এলাকার বাসিন্দাদের অনুমান, অন্য কোন জায়গা থেকে কাউকে খুন করে এই বস্তাতে রেখে মৃতদেহ মঙ্গলবার রাতে কোন এক সময় এখানে ফেলা হয়েছে। ঘটনার সূত্র বার করতে, পুলিশ কুকুর আনা হয়। সেই মৃতদেহ পড়ে থাকার জায়গা সহ আশপাশের এলাকা ঘোরে।

- Advertisement -

বুধবার সকালে বার্ণপুরের নরসিংবাঁধ মিঠাই গলি এলাকায় লোকেরা রাস্তার পাশে একটি বস্তা পড়ে থাকতে দেখেন। সেই বস্তা দেখে পরে লোকেদের সন্দেহ হলে তারাই হিরাপুর থানায় খবর দেন। পুলিশ এসে সেই বস্তা খুলে দেখে বস্তার ভেতরে একটি যুবকের দেহ রয়েছে।

এদিন দুপুরে আসানসোল জেলা হাসপাতালে মৃতদেহর ময়নাতদন্তের পরে জানা যায় অঙ্গাত পরিচয় মৃত যুবকের বয়স আনুমানিক ৪০ থেকে ৪৫ বছর। তাঁর পরনে কালো প্রিন্টেড হাফ প্যান্ট ও কালো টি-শার্ট ছিল। সেই টি-শার্টে কলারের নিচে পান্ডবেশ্বরের একটি টেলারের নাম রয়েছে।

পুলিশ সূত্রে খবর, যুবকের গলায় দড়ি জাতীয় কোন কিছু দিয়ে শ্বাসরোধ করার কালো দাগও রয়েছে। তাঁর মৃত্যু হয়েছে মোটামুটি ২৪ ঘন্টার মধ্যে। ময়নাতদন্তের পরে পুলিশের অনুমান, অন্য কর্মী জায়গায় এই যুবকরা শ্বাসরোধ করে খুন করা হয়েছে। পরে প্রমাণ লোপাটের জন্য বস্তার মধ্যে সেই দেহ রেখে, রাতের অন্ধকারে সেই বস্তা বার্ণপুরে ফেলা হয়েছে।

এই ঘটনায় আসানসোল দূর্গাপুর পুলিশের ডিসিপি (পশ্চিম) বিশ্বজিৎ মাহাতো এদিন বলেন, ‘ময়নাতদন্তের পরে জানা গিয়েছে, ঐ যুবককে খুন করা হয়েছে। আমরা একটি খুনের মামলা করে তদন্ত শুরু করেছি। যুবকের পরিচয় জানার চেষ্টা করা হচ্ছে। বিভিন্ন থানার সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে।‘