রাতে মাথাভাঙ্গায় ওষুধ পেতে ভরসা ন্যায্যমূল্যের ওষুধের দোকান

642

মাথাভাঙ্গা : রাতের মাথাভাঙ্গা শহরে জীবনদায়ী ও প্রয়োজনীয় ওষুধ খুঁজতে নাজেহাল সাধারণ মানুষ। রাত ১০টা বাজতেই শহরের সমস্ত ওষুধের দোকান বন্ধ হয়ে গেলে প্রয়োজনে ওষুধ পেতে মাথাভাঙ্গাবাসীর একমাত্র ভরসা মহকুমা হাসপাতালের ন্যায্য মূল্যের ওষুধের দোকান। তবে সেখানে পর্যাপ্ত ওষুধ না থাকায় সমস্যায় পড়তে হয় রোগীর আত্মীয় পরিজনকে।

বছরখানেক আগেও মাথাভাঙ্গা শহরে রাতের বেলায় আপৎকালীন ওষুধ পরিসেবা চালু ছিল। মাথাভাঙ্গা মহকুমা হাসপাতাল চত্বরে অবস্থিত সংগঠনভুক্ত ওষুধের দোকানগুলির কয়েকটিতে রোটেশনের ভিত্তিতে রাতের বেলা ওষুধ বিক্রির পরিসেবা চালু করেছিল বেঙ্গল কেমিস্ট অ্যান্ড ড্রাগিস্ট অ্যাসোসিয়েশন (বিসিডিএ)। সেসময় রাতে প্রয়োজনীয় ওষুধ পেতে কোনো সমস্যা হত না মাথাভাঙ্গাবাসীর। বিসিডিএর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে রাতের বেলা ওষুধ পরিসেবা চালু রাখতে গিয়ে নানা সমস্যায় পড়তে হচ্ছে দোকানের মালিক ও কর্মীদের। বিনা প্রেসক্রিপশনে ঘুমের ওষুধ থেকে শুরু করে নানা ধরনের ওষুধ দেওয়ার জন্য চাপ ছাড়াও মদ্যপ অবস্থায় হামলার মতো ঘটনায় ওষুধ ব্যবসায়ীরা উদ্বিগ্ন। বিসিডিএ কোচবিহার জেলা কমিটির সম্পাদক সৌমেন চক্রবর্তী অভিযোগ করেন, সম্প্রতি মহকুমা হাসপাতাল চত্বরে রাতের বেলায় জনৈক ওষুধ ব্যবসায়ীর দোকানে  দুষ্কৃতীরা হামলা চালিয়ে তাঁকে মারধোর করে। ঘটনার প্রতিবাদে সে সময় মাথাভাঙ্গায় ২৪ ঘন্টা ওষুধ ব্যবসা বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল বিসিডিএ। সৌমেনবাবু জানান, তবে ওইদিন শেষ পর্যন্ত ২ ঘন্টার প্রতীকী বনধ পালন করে তা প্রত্যাহার করে নেওয়া হয় জনস্বার্থে। তিনি বলেন, ‘প্রশাসনের কাছে ওষুধ ব্যবসায়ীদের নিরাপত্তার দাবির পাশাপাশি রাতের শহরে পুলিশি টহলদারি বাড়ানোর দাবি জানানো হয়েছে। য্য মূল্যের ওষুধের দোকানে সব ধরনের ওষুধ না পাওয়া যাওয়ায় মাথাভাঙ্গা শহরে রাতের বেলা ওষুধ পরিসেবা ফের চালুর বিষয়টি সংগঠনের ভাবনা চিন্তায় রয়েছে। মাথাভাঙ্গাবাসীর সমস্যার কথা মাথায় রেখেই সংগঠনের পরবর্তী সভায় সেটি ফের চালু করা যায় কিনা তা নিয়ে আলোচনা হবে।’

- Advertisement -

রাতে শহরে ওষুধ বিক্রি পরিসেবা চালু থাকা উচিত বলে মনে করছেন মাথাভাঙ্গা পুরসভার চেয়ারম্যান সহ শহরের অনেকেই। পুরসভার চেয়ারম্যান লক্ষপতি প্রামাণিক বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে বিসিডিএ নেতৃত্বের সঙ্গে কথা বলব।’

ছবি- রাতে প্রয়োজনীয় ওষুধের ক্ষেত্রে মাথাভাঙ্গাবাসীর একমাত্র ভরসা মহকুমা হাসপাতাল চত্বরের ন্যায্য মূল্যের ওষুধের দোকানটি।

তথ্য ও ছবি- বিশ্বজিৎ সাহা