পুজোর আগে মালদায় ছড়াচ্ছে জাল নোট

364

হরষিত সিংহ, মালদা : দুর্গাপুজোর আগে মালদায় ফের সক্রিয় হয়ে উঠছে জাল নোট পাচারচক্র। পাচারকারীদের হাত ধরে পুজোর আগে মালদা শহরের বাজারে জাল নোট ছড়ানোর সম্ভাবনা রয়েছে। কয়েকদিনের ব্যবধানে ইংরেজবাজার থানার পুলিশ দুবার জাল নোট সহ পাচারকারীদের গ্রেপ্তার করায় এই আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। জেলার ব্যবসায়ীদের একাংশের অনুমান, পাচারকারীরা হয়তো ইতিমধ্যেই বাজারে জাল নোট ছড়িয়ে দিয়েছে। তাই ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে সবাইকে সাবধানে থাকার বার্তা দেওয়া হচ্ছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, নোটবন্দির পর মালদা জেলাতেই প্রথম নতুন জাল নোট পাওয়া গিয়েছিল। প্রথমে দুহাজার টাকার জাল নোটের হদিস পায় পুলিশ। তবে সেই সময় নতুন জাল নোটের সঙ্গে আসল টাকার অনেক ফারাক ছিল। ফলে সেই জাল নোট থেকে আসল নোট সহজেই আলাদা করা যেত। কিন্তু জাল নোট উন্নত হয়েছে। বর্তমানে জেলার বিভিন্ন প্রান্তে যে সমস্ত জাল নোট পাওয়া যাচ্ছে, তা হুবহু আসল নোটের মতো। সাধারণ মানুষ সহজে জাল নোট চিনতে পারবেন না। জাল নোট পাচার রুখতে পুলিশের পক্ষ থেকে জেলাজুড়ে  বিশেষ অভিযান শুরু হয়েছে। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার গভীর রাতে ইংরেজবাজার থানার পুলিশ হানা দেয় শহরের আমবাজার সংলগ্ন গৌড়কন্যা বাস টার্মিনাসে। সেখানে সন্দেহজনক অবস্থায় তিন যুবককে ঘোরাঘুরি করতে দেখে পুলিশ তাদের আটক করে। জিজ্ঞাসাবাদ ও তল্লাশি চালিয়ে পুলিশ তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করে জাল নোটের বান্ডিল। তিনজনকেই গ্রেপ্তার করা হয়। ধৃতদের নাম সেলিম শেখ (২২), বাড়ি কালিয়াচক থানার মোজমপুর, মহসিন শেখ (১৮), বাড়ি কালিয়াচক থানার গোলাপগঞ্জ সারদাহা ও মহম্মদ সামিউল শেখ (২৬), বাড়ি মোজমপুর ইমামজাগির গ্রামে। ধৃতদের কাজ থেকে উদ্ধার হয়েছে এক লক্ষ ৯০ হাজার টাকার জাল নোট। সবগুলিই দুহাজার টাকার নোট। শুক্রবার ধৃতদের মালদা জেলা আদালতে পেশ করে ইংরেজবাজার থানার পুলিশ। ধৃতদের পুলিশি হেপাজতের আবেদন জানানো হয়।

- Advertisement -

ইংরেজবাজার থানা সূত্রে জানা গিয়েছে, লকডাউনে বিভিন্ন এলাকা থেকে প্রায় ৬ লক্ষ টাকার জাল নোট উদ্ধার করা হয়েছে। গ্রেপ্তার হয়েছে পাঁচ পাচারকারী। মূলত কালিয়াচক থানার ভারত-বাংলাদেশ সীমান্ত ও মুর্শিদাবাদ থেকে জাল নোট, পাচারকারীদের চেইন ধরে মালদায় আসে। এই জেলা থেকে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে সেই নোট পাচার করা হয়। তবে পুজোর মরশুমে জেলার বাজারেও জাল নোট ছড়িয়ে দেওয়া চেষ্টা করে পাচারকারীরা। ইংরেজবাজার থানার আইসি মদনমোহন রায় জানান, গোপন সূত্রে খবর পেয়ে আমরা এক লক্ষ ৯০ হাজার টাকার জাল নোট সহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছি। পুজোর মরশুম শুরু হয়ে গিয়েছে। এই মুহূর্তে বাজারে জাল নোট ছড়িয়ে দেওয়ার সম্ভাবনা থাকতে পারে। মালদা মার্চেন্ট চেম্বার অফ কমার্সের সম্পাদক জয়ন্ত কুণ্ডু জানান, পুলিশের ভূমিকাকে আমরা ধন্যবাদ জানাচ্ছি। পুজোর আগে বাজারে জাল নোট ছড়িয়ে পড়লে লোকসানের মুখে পড়বেন সাধারণ মানুষ ও ব্যবসায়ীরা। পুলিশ জাল নোট পাচার রুখতে বিশেষ ভমিকা পালন করছে। বাজারে জাল নোট ঢোকা আটকাতে পুলিশকে আরও সক্রিয় ভমিকা পালন করতে হবে।

প্রতীকী ছবি