আবর্জনায় দমবন্ধ ফালাকাটা শহরের

394

ফালাকাটা : দেশজুড়ে স্বচ্ছ ভারত অভিযান চলছে। রাজ্যে মিশন নির্মল বাংলার কাজ এগোচ্ছে। সেই সময়ে আবর্জনায় জেরবার ফালাকাটা শহর। কয়েক বছর থেকে সাফাই না হওয়ায় ফালাকাটার হাটখোলায় আবর্জনার পাহাড় জমেছে। শহরে ঢোকার মুখে দুটি রেল ওভারব্রিজের ধারে  আবর্জনা পড়ে রয়েছে। এছাড়া শহরের অলিগলি,সাপটানা সেতুর আশপাশ ডাম্পিং গ্রাউন্ডে পরিণত হয়েছে। দুর্গন্ধের কারণে শহরের প্রবীণ বাসিন্দাদের অনেকেই প্রাতঃভ্রমণে বেরনো ছেড়ে দিয়েছেন।

প্রায় পাঁচ মাস আগে ফালাকাটার দুটি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় সলিড ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্ট প্রকল্প গড়ে তোলার কথা ঘোষণা করে প্রশাসন। কিন্তু এখনও কোনো প্রকল্পের কাজ শুরু হয়নি। তাই আবর্জনার স্তূপ নিয়ে ক্ষোভ ছড়িয়েছে ফালাকাটায়। তবে হাটখোলায় আবর্জনা সাফাইয়ের আশ্বাস দিয়েছে জেলা পরিষদ। দুটি সলিড ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্ট প্রকল্প নিয়ে ফালাকাটার বিডিও সুপ্রতীক মজুমদার বলেন, ‘একটির অনুমোদন চলে এসেছে। আরেকটির অনুমোদন পাওয়ার জন্য উপরমহলে আবেদন পাঠানো হয়েছে।’

- Advertisement -

ফালাকাটার হাটখোলার মাংস বাজারের পাশে দিনের পর দিন আবর্জনা জমে ভাগাড়ের চেহারা নিয়েছে। আবর্জনার স্তূপে সারাক্ষণ মাছি ভনভন করছে, কাক-চিল উড়ে বেড়াচ্ছে। চরে বেড়াচ্ছে শুয়োরও। আবর্জনার স্তূপের দুর্গন্ধে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছেন ব্যবসায়ী সহ হাটে আসা মানুষজন ও এলাকাবাসী। নাকে রুমাল চাপা দিয়ে হাটখোলা থেকে মাংস কিনতে হয় শহরবাসীকে।

আলিপুরদুয়ার থেকে ফালাকাটা শহরে ঢোকার মুখে মিলরোড চৌপথির পাশে একটি ও জয়গাঁ,মাদারিহাট হয়ে শহরে ঢোকার মুখে মাদারি রোডের কাছে রেলওয়ে ওভারব্রিজ রয়েছে। অভিযোগ, রাস্তা ঘেঁষে দুই ওভারব্রিজের ধারে নিয়মিত বাড়ির আবর্জনা ফেলেন শহরবাসীর কেউ কেউ। ফালাকাটায় কোনো ডাম্পিং গ্রাউন্ড না থাকায় শহরের বুক চিরে বয়ে যাওয়া সাপটানা নদীও আবর্জনার চাপে মজে যেতে বসেছে। নেতাজি রোডে থাকা এই নদীর উপর পাকা সেতুর আশপাশেও জমেছে আবর্জনার স্তূপ। সব মিলে আবর্জনার চাপে নাভিশ্বাস উঠেছে শহরবাসীর।

আবর্জনার কবল থেকে মুক্তি পেতে শহর লাগোয়া পারঙ্গেরপার ও জটেশ্বর-২ গ্রাম পঞ্চায়েতে দুটি সলিড ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্ট প্রকল্প গড়ে তোলার উদ্যোগ নেয় প্রশাসন। কিন্তু এখনও সেই প্রকল্পের কাজ শুরু না হওয়ায় আবর্জনায় মুখ ঢেকেছে ফালাকাটার।

শহরের পরিবেশপ্রেমী শিক্ষক ডঃ প্রবীর রায়চৌধুরি বলেন, ‘আবর্জনার দুর্গন্ধে অনেকের মর্নিং ওয়াক বন্ধ হয়েছে। এই সমস্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে।’ ফালাকাটা হাটখোলা ব্যবসায়ী সমিতির সম্পাদক রতন বর্ধন বলেন, ‘আবর্জনার জন্য নরক যন্ত্রনা ভোগ করতে হয় ব্যবসায়ীদের।৪-৫ বছর থেকে জেলা পরিষদের এই হাটে আবর্জনা সরানোর কাজ বন্ধ রয়েছে।’ মিল রোডের রেল ওভারব্রিজের রাস্তায় এই আবর্জনার জন্য মর্নিং ওয়াক বন্ধ করেছেন ফালাকাটা পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি সুরেশ লালা। তিনি বলেন, ‘দুর্গন্ধের কারণে কিছুদিন থেকে আমি নিজেই মর্নিং ওয়াকে যাচ্ছি না। তবে সলিড ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্ট প্রকল্পের কাজ দ্রুত শুরু হবে।’ ওই প্রকল্প নিয়ে বিডিও সুপ্রতীক মজুমদার বলেন, ‘পারঙ্গেরপারের টেন্ডারও হয়ে গিয়েছে। দ্রুত কাজ শুরু হবে। আর জটেশ্বর-২ গ্রাম পঞ্চায়েতে অনুমোদন পেলেই টেন্ডার প্রক্রিয়া শুরু হবে।’ আলিপুরদুয়ার জেলা পরিষদের কর্মাধ্যক্ষ ফালাকাটার সন্তোষ বর্মন বলেন, ‘হাটের আবর্জনার বিষয়টি নজরে রয়েছে। কিছুদিন আগে নিকাশিনালাগুলি সাফাই করা হয়। আবর্জনার স্তুপ সরানোর ব্যাপারেও শীঘ্রই পদক্ষেপ করা হবে।’

ছবি : ফালাকাটার হাটখোয়ালায় আবর্জনার স্তুপ।

তথ্য ও ছবি : সুভাষ বর্মন