মেডিকেল কলেজের করিডরেই সংসার, দুই শিশুকে বড় করছেন মা

202

রায়গঞ্জ: দুই শিশুকে নিয়ে প্রায় বছর দুয়েক ধরে রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজের করিডরে সংসার পেতে বসেছেন মা সিতো সোরেন। একজনের বয়স ৩, আরেকজনের বয়স ২ বছর। তাঁদের নেই কোনও জন্ম সার্টিফিকেট, আধার কার্ড। কার্যত কষ্টে, অনাহারে দিন কাটাচ্ছেন তাঁরা।

পাঁচ বছর আগে রায়গঞ্জের শেরপুরের বাসিন্দা সিতো সোরেনের বিয়ে হয়েছিল কালিয়াগঞ্জের এক বাসিন্দার সঙ্গে। বিয়ের পর থেকে শুরু হয় মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন। অবশেষে তিন বছর পর দুই ছেলেকে সঙ্গে নিয়ে বাপের বাড়ি চলে যান সিতোদেবী। কিন্তু সেখানেও ঠাঁই হয়নি তাঁর। তাই দুই শিশুকে নিয়ে মেডিকেল কলেজে চলে আসেন তিনি। মেডিকেল কলেজের করিডরে আশ্রয় নেন। রোগীর পরিবারের সদস্যরা যতটুকু খাবার দেয় সেটাই ভাগ করে খান। পাশাপাশি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার দেওয়া খাওয়ারেই তাঁদের দিন চলে।

- Advertisement -

মেডিকেল কলেজের অস্থায়ী কর্মী সংগঠনের সভাপতি প্রশান্ত মল্লিক বলেন, ‘শীত, গ্রীষ্ম ও বর্ষায় খোলা আকাশের নীচেই থাকে এরা। আমরা দুই শিশুর পড়াশোনা দায়িত্ব নেব। যদি কোনও স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা বা সরকারি সংস্থা এগিয়ে আসে তাহলে খুব ভালো হয় বলে জানিয়েছেন তিনি।’ তৃণমূল রোগী পরিষেবা কেন্দ্রের আহ্বায়ক তপন নাগ বলেন, ‘আমরা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এবং শিশু কল্যাণ সমিতির সঙ্গে এ ব্যাপারে কথা বলব। ‘জেলা শিশু কল্যাণ সমিতির চেয়ারম্যান অসীম রায় জানান, শিশুদের যেহেতু কোনও কাগজপত্র নেই তাই মেডিকেল কলেজ কর্তৃপক্ষকে সুপারিশ করতে হবে। সুপারিশ পেলে হোমে থাকার ব্যবস্থা করা যেতে পারে।