বাঁধ ভেঙে ভাসছে জমি, প্রতিবাদে সেচ দপ্তরে বিক্ষোভ কৃষকদের

107

বর্ধমান: বাঁধ মেরামতের দাবিতে বর্ধমানের সেচ দপ্তরের অফিসের সামনে বিক্ষোভ দেখালেন কৃষকরা। মঙ্গলবার বর্ধমান ১ ব্লকের রাইপুর, ভিটা, সোনপুর সহ আরও বেশ কয়েকটি এলাকার কৃষকরা বিক্ষোভে শামিল হন। প্রশাসনের কর্তাদের আশ্বাসে কৃষকরা বিক্ষোভ প্রত্যাহার করে নেন। দ্রুত বাঁধ মেরামত না হলে বৃহত্তর আন্দোলনে যাওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন কৃষকরা।

শস্যগোলা বলে পরিচিত পূর্ব বর্ধমানে জোরকদমে চলছে আলু চাষ। পাশাপাশি বোরো ধান চাষের প্রস্তুতিও শুরু হয়েছে। রাইপুর, ভিটা, সোনপুর সহ অন্য বেশ কয়েকটি গ্রামের কৃষকরা জানিয়েছেন, জানুয়ারির শেষের দিকে বোরো ধান চাষের জন্য জেলায় ডিভিসির সেচ খাল থেকে জল দেওয়া শুরু হয়েছে। সপ্তাহখানেকের মধ্যেই জেলার সর্বত্র জমিতে বোরো ধান রোয়ার কাজ শুরু হবে। এই সময়ে বীজতলায় জলের দরকার। কিন্তু বর্ধমান ১ নম্বর ব্লকের ভিটা সোনপুর সেচ খালের বাঁধ ভেঙে যাওয়ায় সেচের জল দেওয়া বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। অন্যদিকে ভাঙা বাঁধের অংশ দিয়ে পাকা ফসলের জমিতে জল ঢুকে পড়ছে। ফলে চরম সংকটে পড়েছেন কৃষকরা। বিক্ষোভে অংশগ্রহণকারী কৃষক সুকুমার ঘোষ জানান, তিনদিন আগে সেচ খালের বাঁধ ভেঙে এলাকার আলু, সরিষা ও পেঁয়াজের জমিতে জল ঢুকে যায়। টানা দু’দিন আলু, সরিষা জমির ছিল জলের তলায়। ফলে পাকা আলু ও সরিষা নষ্ট হয়ে যাওয়ার শঙ্কা দেখা দিয়েছে। অবিলম্বে ভাঙা বাঁধ মেরামতের দাবিতে এলাকার কৃষকরা জেলা সেচ দপ্তরের অফিসে বিক্ষোভ দেখান। ভাঙা বাঁধ মেরামতের দাবিতে ডেপুটেশনও জমা দেন। কৃষকদের দাবির বিষয়ে পূর্ব বর্ধমান জেলা পরিষদের সহ সভাধিপতি দেবু টুডু বলেন, ‘কৃষকদের সমস্যার কথা শুনেছি। রাজ্য সরকার কৃষকদের পাশে রয়েছে। বাঁধ মেরামতের জন্য সেচ দপ্তরের কর্মীদের দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলা হয়েছে।’

- Advertisement -