চাঁচল, ৭ সেপ্টেম্বরঃ জমি কৃষকদের জীবন, তাই জমিকে রক্ষা করতে হবে। এই শ্লোগান তুলে জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে ন্যায্যমূল্য না পেয়ে শনিবার মালদার হরিশ্চন্দ্রপুর থানা ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখাল কয়েকশো কৃষক পরিবার। প্রতিবাদ করলেই জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষের কর্মীরা কৃষকদের ওপর মিথ্যা মামলা দিচ্ছেন বলে কৃষক পরিবারের অভিযোগ। ঘণ্টাখানেক পর পুলিশের আশ্বাসে বিক্ষোভ তুলে নেয় কৃষক পরিবারগুলি।

২০১৬-১৭ সাল থেকে সামসী জিয়াগাছি থেকে হরিশ্চন্দ্রপুর পর্যন্ত জাতীয় সড়ক ৮১ বাইপাসের নতুন রাস্তা তৈরির কাজ শুরু হয়েছে। সেই মতো ওই এলাকার মধ্যে থাকা এগারোশো কৃষক পরিবারের জমি অধিগ্রহণ শুরু করে জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষ। জমি অধিগ্রহণের সময় জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষ জানায়, সরকারি নিয়ম অনুযায়ী কৃষকদের জমির মূল্য দেওয়া হবে। সেই সময় জমির মূল্য তিন লক্ষ টাকা বলা হলেও বর্তমানে তা ৩৭ হাজার টাকা করে দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ। ফলে বিপাকে পড়েছে রতুয়া, হরিশ্চন্দ্রপুর ও চাঁচলের প্রায় এগারোশো কৃষক পরিবার। পাশাপাশি জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষ জানিয়েছিল, জাতীয় সড়কের ধারে থাকা জমির ওপর রাস্তা তৈরির কোনো প্রভাব পড়বে না। কিন্তু পরবর্তী সময়ে রাস্তা তৈরি করতে গিয়ে জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষের ইঞ্জিনিয়াররা জমির ফসল নষ্ট করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। ঘটনার প্রতিবাদ করলেই কৃষকদের ওপর মিথ্যা মামলা দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ।

হরিশ্চন্দ্রপুরের এক কৃষক সামসুল হক বলেন, ‘বিষয়টি আমরা স্থানীয় প্রশাসনকে বারবার জানিয়েছি। কিন্তু কোনো সুরাহা হয়নি। দিনে দিনে এইসব পরিবারগুলি অসহায় হয়ে পড়ছে। তাই বাধ্য হয়ে এদিন হরিশ্চন্দ্রপুর থানা ঘেরাও করে বিক্ষোভ করেছি। যদি এরপরও কৃষক পরিবারগুলি তাদের জমির ন্যায্যমূল্য না পায় তাহলে আন্দোলনে নামতে বাধ্য হব।’ যদিও এ বিষয়ে জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষের কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।