ওদলাবাড়ি, ১ জুনঃ আত্মীয়ের বাড়িতে বেড়াতে এসে ট্রেনের ধাক্কায় মৃত্যু হল বাবা ও ছেলের। আহত স্ত্রী ও আরেক ছেলে। শনিবার ঘটনাটি ঘটে সেবক রেলসেতু পেরিয়ে মংপং বনবস্তির কাছে। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, তিনদিন আগে নেপালের কাকড়ভিটা শহরের ব্যবসায়ী ইন্দ্রবাহাদুর শ্রেষ্ঠা স্ত্রী মল্লিকা ও দুই ছেলে রোহন এবং রোশনকে নিয়ে মংপং নিবাসী রামবাহাদুর প্রধানের বাড়িতে বেড়াতে এসেছিলেন। এদিন দুপুরে মংপং বস্তি সংলগ্ন রেললাইনের ধারে আপন খেয়ালে ঘুরে বেড়াচ্ছিলেন তাঁরা। সেই সময় পেছন থেকে শিলিগুড়ি-বঙ্গাইগাঁও গামী একটি ডিএমইউ ট্রেন চলে আসে। কিছু বুঝে ওঠার আগেই ট্রেনের ধাক্কায় ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় ইন্দ্রবাহাদুর শ্রেষ্ঠা (৪২) এবং ছোটো ছেলে রোহনের (১১)। ট্রেনের ধাক্কায় দূরে ছিটকে গিয়ে গুরুতর জখম হন ইন্দ্রবাহাদুরের স্ত্রী মল্লিকা (৩৩)। বড় ছেলে রোশন (১৪) আঘাত তেমন গুরুতর নয়। দুর্ঘটনার পর বনবস্তির বাসিন্দারা জখম মল্লিকাদেবীকে মাল সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে ভরতি করান। প্রাথমিক চিকিৎসার পর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে রোশন শ্রেষ্ঠাকে। খবর পেয়ে রেল পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে পৌঁছে মৃতদেহ দুটি উদ্ধার করে। রবিবার মৃতদেহ দুটি ময়নাতদন্তের পর পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হবে বলে রেল পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে।