ব্রাইট ছোঁয়ায় প্রথম জয় এসসি ইস্টবেঙ্গলের

ভাস্কো: বিশের বিষ পেছনে ফেলে একুশে অবশেষে আশার আলো। সুপার সানডে-তে লিগ টেবিলের লাস্টবয় ওডিশা এফসিকে ৩-১ গোলে হারিয়ে আইএসএলে প্রথম জয়ের স্বাদ পেল এসসি ইস্টবেঙ্গল।

টানা সাত ম্যাচে জয়হীন। এই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে লিগ টেবিলের এগারো নম্বরে থাকা ওডিশার বিরুদ্ধে মাঠে নেমেছিল দশ নম্বরের এসসি ইস্টবেঙ্গল। তবে পুরোনো বছরের মতো ব্যর্থতাকে পেছনে ফেলে ঘুরে দাঁড়াল ফাওলার বাহিনী। প্রথম দলে মিলন সিং থেকে রাজু গায়কোয়াড়, রিজার্ভ বেঞ্চে ব্রাইট এনোবাখারে, হরমনপ্রীত, অঙ্কিত মুখোপাধ্যায় একাধিক পরিবর্তনে নতুন শুরুর বার্তা দিয়েছিলেন লাল-হলুদের ব্রিটিশ কোচ। ফুটবলাররাও মান রাখলেন।

- Advertisement -

ম্যাচের বয়স তখন ১২ মিনিট। এসসি ইস্টবেঙ্গলের জয়ের রাস্তা তৈরি করে দিলেন নবাগত রাজু। তাঁর ট্রেডমার্ক লং থ্রো-র হদিস পায়নি জেকব ট্রট, স্টিভেন টেলরের ওডিশা। পেয়েছিলেন পিলকিনটন। গৌরব ভোরাকে টপকে আইরিশ তারকার হেড জালে জড়াতেই এগিয়ে যায় ফাওলার বাহিনী। স্বস্তির দ্বিতীয় গোলও এল প্রথমার্ধে। ৩৯ মিনিটে উইংয়ে দাঁড়ানো জাঁক মাঘোমাকে লক্ষ্য করে বল বাড়ান গত ম্যাচে জোড়া গোলের নায়ক মাতি স্টেইনম্যান। জোড়া ডিফেন্ডারকে ঘাড়ে নিয়ে ওডিশার গোল লক্ষ্য করে শট নিয়েছিলেন মাঘোমা। তাঁর গোলার মতো শট আটকানোর উপায় জানা ছিল না বিপক্ষ গোলরক্ষক আর্শদীপের। ম্যাচের প্রথমার্ধে এই প্রথমবার ২ গোলে লিড নিতে দেখা গেল লাল-হলুদকে।

তবে এগিয়ে গিয়ে ম্যাচের রাশ কখনও নিজেদের দখলে রাখতে পারেননি নেভিলরা। দুর্বল রক্ষণ এদিনও মাথাব্যথার কারণ হয়ে উঠেছিল কোচ ফাওলারের। বিপক্ষের চাপ সামলাতে না পেরে আত্মঘাতি গোল করে বসলেন লাল-হলুদ অধিনায়ক ড্যানি ফক্স। তবে গোলপোস্ট সহায় আর দেবজিৎ সেভজিৎ না হযে উঠলে দুর্ভোগ আরও বাড়ত এসসি ইস্টবেঙ্গলের। আশঙ্কার সেই কালো মেঘের মাঝেই উজ্জ্বল আবির্ভাব ব্রাইটের। দ্বিতীযার্ধে মাঘোমার পরিবর্ত হিসেবে মাঠে নামলেন। ৮৮ মিনিটে তাঁর জোরাল শট কোনওমতে বাঁচালেন আর্শদীপ। কিন্তু ফিরতি বল জালে রাখতে ভুল করেননি লাল-হলুদের ২২ বছরের নাইজিরীয় স্ট্রাইকার। পায়ে চোরাগতির সঙ্গে উইংনির্ভর আক্রমণে স্বচ্ছন্দ। গোলমুখ ভালো চেনেন। ফাওলারের ইস্টবেঙ্গলে পারফেক্ট টেন হযে ওঠার হাতছানি ব্রাইটের সামনে।

আর ব্রাইট ঝলমল করতেই মুখে উজ্জ্বল হাসি ফাওলারের। খুশির রোশনাই লাল-হলুদ শিবিরে।

এসসি ইস্টবেঙ্গল : দেবজিৎ, স্কট নেভিল, ড্যানি ফক্স, রাজু গায়কোয়াড় (অঙ্কিত), মাতি স্টেইনম্যান, মহম্মদ রফিক (ওয়েংবাম), বিকাশ জাইরু, মিলন সিং (হরমনপ্রীত), হাওবাম সিং (সুরচন্দ্র), জাঁক মাঘোমা (ব্রাইট), অ্যান্থনি পিলকিনটন