চিতার হানায় জখম রেঞ্জার সহ ৫, বনদপ্তরের গুলিতে খতম বাঘ

470

ফাঁসিদেওয়া, ১৬ ডিসেম্বরঃ চিতার হামলায় বন দপ্তরের রেঞ্জার সহ মোট ৫ জন জখম হলেন। বন বিভাগের বন্দুকে চালানো গুলিতে খতম বাঘ। বুধবার রাতে ঘটনাকে কেন্দ্র করে শিলিগুড়ি মহকুমার অন্তর্গত ফাঁসিদেওয়া ব্লকের রাঙ্গাপানি রেলগেট এবং বেসরকারি ক্যান্সার হাসপাতাল সংলগ্ন শিমুলতলা গ্রামে ব্যাপক আতঙ্ক ছড়ায়।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, এদিন এলাকায় হঠাৎই একটি চিতাবাঘ বেরিয়ে আসে। এরপর একের পর এক গ্রামবাসীর ওপর হামলা চালায়। লোকালয়ে ঘটনাকে কেন্দ্র করে একদিকে যেমন আতঙ্ক বাড়তে থাকে, তেমনই গোটা এলাকা জুড়ে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। ঘটনার পরই স্থানীয়রা লাঠি হাতে বেরিয়ে পড়েন। খবর পেয়ে বাগডোগরা এবং শালুগাড়া রেঞ্জের বনকর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। বাগডোগরা থানা এবং রাঙ্গাপানি ফাঁড়ির পুলিশ ঘটনাস্থলে হাজির হয়।

- Advertisement -

স্থানীয় বাসিন্দা এবং বনকর্মীরা লাঠি দিয়ে পেটাতে থাকেন বলে অভিযোগ। ততক্ষণে রাঙ্গাপানিতে অবস্থিত বেসরকারি ক্যান্সার হাসপাতালের একজন কর্মী, স্থানীয় বাসিন্দা কমল সরকার, শুভ সরকার এবং গৌতম ঘোষ চিতাটি ঘায়েল করেছিল। শালুগাড়া বনদপ্তরেরে রেঞ্জার সঞ্জয় দত্তকেও পরে বাঘটি জখম করে। পরে, বনকর্মীরা গুলি চালায় বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন।

ঘটনাস্থল থেকে রক্তাক্ত অবস্থায় বাঘটিকে উদ্ধার করে নিয়ে যাওয়া হয়। আহত গ্রামবাসীদের উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়েছে। পাশাপাশি, বনদপ্তরের রেঞ্জারকে একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। বন দপ্তর মনে করছে চিতা বাঘটি ঘোষপুকুর সংলগ্ন গঙ্গারাম চা বাগান থেকে লোকালয়ে চলে এসেছিল।

আহতদের মধ্যে গৌতম ঘোষ জানিয়েছেন, তিনি ঘরের বাইরে বের হতেই চিতাবাঘ আক্রমণাত্মক হয়ে তাঁর ওপর হামলা চালায়। ঘটনায় তাঁর হাতে, মুখে এবং পায়ের কাছে আঘাত লেগেছে। পাশাপাশি, ঘটনায় তাঁদের পরিবারের আরও বেশ কয়েকজনকে চিতা বাঘটি জখম করেছে। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, এই ঘটনায় এক ব্যক্তি আশঙ্কাজনক অবস্থায় চিকিৎসারত রয়েছেন। তাঁর মুখে চিতাবাঘ ঝাঁপিয়ে পড়েছিল।

এদিকে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় কার্শিয়াং বন দপ্তরের ডিভিশনাল ফরেস্ট অফিসার জে শেখ ফারিদ। তিনি জানিয়েছেন ঘটনাস্থলে মারা গিয়েছে কিনা তা এখনও পরিষ্কার নয়। ঘটনায় কতজন আহত হয়েছে তা তদন্তের পরই বলা যাবে। যদিও, পরে বনদপ্তরের তরফে জানানো হয়েছে, বনকর্মীরা নিজেদের বাঁচানোর তাগিদে এক রাউন্ড গুলি চালিয়েছে। ঘটনাস্থলেই চিতাটি মারা গিয়েছে।

ইতিমধ্যেই, নিহত বাঘটিকে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। অপরদিকে, ওই এলাকায় আরও একটি চিতাবাঘ রয়েছে বলে স্থানীয়রা দাবি করেছেন। ওই চিতাবাঘটিকে ধরার জন্য বন দপ্তরের কাছে আর্জি জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।