শীতকালে পায়ের যত্নে অব্যর্থ ফুট বাথ, কাটবে সারাদিনের ক্লান্তিও

55

ডিজিটাল ডেস্ক, উত্তরবঙ্গ সংবাদঃ রাতের ঘুমে বাড়তি প্রশান্তি যোগ করতে পারে মিনিট কয়েকের ফুট বাথ৷ হ্যাঁ, মানে পায়ের স্নান। শুধু রাতে ঘুমের আগে কয়েকটি নিয়ম মেনে বাড়িতেই এই কাজটি সেরে নেওয়া যেতে পারে। কর্মব্যস্ত জীবনে সারাদিন দৌড়ঝাঁপের পর, কয়েক মিনিট সময় নিয়ে যে কেউই এই প্রশান্তির সুবিধা নিতে পারেন। রিপোর্ট বলছে শুধু মানসিক শান্তি নয়, পায়ের রক্ত সঞ্চালন বাড়ে এই ফুট বাথে।

কয়েকমাস পরপর একটা পেডিকিওরই যথেষ্ট নয়। মাঝে মধ্যে পায়ের জন্য দেওয়া যেতে একটু সময়। সেটা দুপুর বেলাতেও করা যেতে পারে। এরজন্য প্রয়োজন একটু এপসম সল্ট কিংবা একটু শ্যাম্পু কিংবা স্কিন কন্ডিশনার। ফুট বাথের পরই আরাম হবে পায়ের। সম্প্রতি পেডিকিওর, ম্যানিকিওরের পাশাপাশি, ফুট বাথের চল বেড়েছে। ১৫ থেকে ২০ মিনিটের মধ্যেই এই কাজ সেরে ফেলা সম্ভব।

- Advertisement -

একটি গামলা জাতীয় পাত্রে হালকা উষ্ণ জলে কয়েক চিমটে এপসম সল্ট দিয়ে পা ডুবিয়ে বসে থাকতে হবে। খানিকক্ষণ পর, ঠান্ডা জলে পা ধুয়ে মুছে একটা ময়শ্চারাইজার লাগাতে হবে। ফুট বাথের সময় গরম জলে অ্যারোমাটিক এসেন্সিয়াল অয়েল যেমন ল্যাভেন্ডার, রোজমেরি, উইন্টারগ্রিন ইত্যাদি ব্যবহার করা যায়। মোজায় কিংবা পা-ঢাকা জুতো পরলে, আঙুলের ফাঁকে ঘাম জমে দুর্গন্ধ হয়, সেক্ষেত্রেও এই উপায়ে ভালো ফল মিলবে বলে জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।

রাতে শোওয়ার আগে ফুট বাথ নিলে এসেন্সিয়াল অয়েলের গন্ধে মস্তিষ্ক আরাম পায়। তাতে লম্বা ঘুমের মজা নেওয়া যাবে। আর পরদিন সকালে কাজের জন্য এক্কেবারে তৈরি। মনে হবে ফুট বাথ যেন ম্যাজিক।শীতকালে পা ফাটার সমস্যাতেও, এই উপায় ভীষণভাবে কাজে দেয়। পায়ের মৃত কোষ দূর করতে, গরম জলে একটু ভিনিগার মেশাতে হবে। পাতিলেবুর রস ও এপসম সল্ট নিয়ে পায়ের গোড়ালির বা তালুতে ঘষে দিলেই হয়ে যাবে।