বনাঞ্চলে যৌথ সাফাই অভিযানে বনদপ্তর এবং স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন

161

গয়েরকাটা, ১০ জানুয়ারিঃ রবিবার বনদপ্তরের মোরাঘাট রেঞ্জ ও স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা আরণ্যকের যৌথ উদ্যোগে মোরাঘাট বনাঞ্চলে সাফাই অভিযান চালানো হল। মোরাঘাট রেঞ্জের মধুবনী থেকে খুট্টিমারি বনাঞ্চলগামী গয়েরকাটা-নাথুয়া রাজ্য সড়কের ধারে ফেলে রাখা মদের বোতল থেকে শুরু করে, মাছের কার্টুন ও অন্যান্য বিভিন্ন ধরনের সামগ্রী সাফাই করা হয়। কিছুদিন ধরেই মোরাঘাট বনাঞ্চলে বিভিন্ন এলাকায় ভাঙা মদের বোতল পরে থাকতে দেখা যাচ্ছিল। ভাঙা কাঁচে বন্যপ্রাণীরা আঘাতপ্রাপ্ত হতে পারে।

এই আশঙ্কায় সোচ্চার হতে দেখা গিয়েছিল স্থানীয় পরিবেশপ্রেমী সংস্থার সদস্যদের। মোরাঘাট রেঞ্জ সূত্রের খবর, রাতের অন্ধকারে কিছু যুবক বনাঞ্চল লাগোয়া এলাকায় মদ্যপান করে মদের বোতল ফেলে যাচ্ছিল। আবার গয়েরকাটার বাজারের আবর্জনা ও বনাঞ্চলে ফেলে দিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। বিষয়টি নজরে আসেতেই এদিন স্থানীয় পরিবেশপ্রেমী সংস্থা আরণ্যক যৌথভাবে বনদপ্তর সাফাই অভিযানে নামে। মোরাঘাট রেঞ্জের রেঞ্জ অফিসার রাজকুমার পাল সহ অন্যান্য বনকর্মীরা। এদিন মধুবনী থেকে খুট্টিমারি পর্যন্ত রাস্তার ধারের মদের বোতল সহ আবর্জনা পরিষ্কার করা হয়।

- Advertisement -

স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা আরণ্যক এর সদস্য কৌশিক বাড়ুই বলেন, বনে ফেলে রাখা কাচের বোতল থেকে যে কোনও বন্যপ্রাণী আঘাতপ্রাপ্ত হতে পারে। তাঁদের মৃত্যু পর্যন্ত ঘটতে পারে। এধরণের কাজ যারা করে চলেছেন, তাঁদের বিরুদ্ধে প্রশাসনকে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার আবেদন জানাচ্ছি। মোরাঘাট রেঞ্জের রেঞ্জ অফিসার রাজকুমার পাল বলেন, দিনের বেলা বনকর্মীরা নজরদারি চালালেও, রাতে কিছু যুবক এই কাণ্ড ঘটাচ্ছিল। তাই বন্যপ্রাণীদের কথা ভেবে, এদিন সাফাই অভিযান চালানো হয়েছে। যারা বনাঞ্চলের পরিবেশ নষ্ট করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন, তাঁদের বিরুদ্ধে বনদপ্তর কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার পরিকল্পনা নিয়েছে।