বনবস্তিতে একশো দিনের কাজে সেরা আলিপুরদুয়ার

352

আলিপুরদুয়ার : বনবস্তি এলাকার বাসিন্দাদের একশো দিনের কাজ পাইয়ে দেওয়ার নিরিখে রাজ্যসেরা হল আলিপুরদুয়ার। বনবস্তি এলাকায় ১০০ দিনের কাজের মাধ্যমে যে কর্মদিবস তৈরি হয়েছে, তা রাজ্যে আর কোথাও হয়নি বলে জেলা প্রশাসন জানিয়েছে। সোমবার নবান্ন থেকে এমন খবর পাওয়ার পরই উচ্ছ্বসিত আলিপুরদুয়ার জেলা প্রশাসনের কর্তারা। আলিপুরদুয়ারের বক্সা, জয়ন্তী থেকে জলদাপাড়া এলাকায় জেলার বনবস্তিগুলি ছড়িয়ে আছে। সব কটি বনবস্তিতেই চলতি অর্থবর্ষে একশো দিনের কাজ রেকর্ড সংখ্যক হয়েছে। এ বিষয়ে আলিপুরদুয়ারের জেলা শাসক সুরেন্দ্রকুমার মিনা বলেন, আলিপুরদুয়ার জেলায় বনবস্তির মোট ১২৫১টি পরিবারকে চলতি বছরে ১০০ দিনের বেশি কাজ দেওয়া হয়েছে। য়া গোটা রাজ্যের নিরিখে সর্বোচ্চ। চলতি অর্থবর্ষে একশো দিনের কাজে গোটা রাজ্যের বনবস্তিগুলির মধ্যে তাই আলিপুরদুয়ার জেলা প্রথম হয়েছে।

আলিপুরদুয়ার জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, মহাত্মা গান্ধি জাতীয় গ্রামীণ কর্মনিশ্চয়তা প্রকল্পে আলিপুরদুয়ার জেলায় ১০২.৭ শতাংশ কাজ হয়েছে। ২০১৯-২০ সালে আলিপুরদুয়ার জেলায় মোট ২ লক্ষ ২৬ হাজার ৯৪১টি পরিবারকে ১০০ দিনের প্রকল্পে কাজ দেওয়া হয়েছে। ২০১৪ সালে আলিপুরদুয়ার জেলা গঠনের পর এত বেশি সংখ্যায় পরিবারকে এই প্রথম ১০০ দিনের কাজের প্রকল্পে কাজ দেওয়া হল। ২০১৮-১৯ সালে জেলায় ১ লক্ষ ৬৯ হাজার ৩৭১টি পরিবারকে এই প্রকল্পে কাজ দেওয়া হয়েছিল। তবে ২০১৭-১৮ সালে এই প্রকল্পে জেলায় ২ লক্ষ ১১ হাজার ১৪৯টি পরিবারকে এই প্রকল্পে কাজ দেওয়া হয়েছিল। চা বাগান এলাকার ৩৫ হাজার মানুষকে বছরে ১০০ দিনের বেশি কাজ দেওয়া হয়েছে।

- Advertisement -

উত্তরবঙ্গে মোট ৩৫০টি বনবস্তি আছে। আলিপুরদুয়ার জেলায় আছে ৬৫টি বনবস্তি। এই ৬৫টি বনবস্তিতে প্রায় সাড়ে ছয় হাজার বাসিন্দা আছেন। তাঁদের মূল জীবিকা চাষবাস, পশুপালন। এখন অনেকে হোমস্টের ব্যবসা করেও ঘুরে দাঁড়িয়েছেন। তবুও বনবস্তিগুলির প্রত্যন্ত এলাকায় কর্মসংস্থানের বড় অভাব বলে বাসিন্দারা জানিয়েছেন। এই অবস্থায় আলিপুরদুয়ার জেলা প্রশাসন বনবস্তিগুলিতে কর্মসংস্থান বাড়াতে ১০০ দিনের কাজকে হাতিয়ার করে। এ বিষয়ে উত্তরবঙ্গ বন শ্রমজীবী মঞ্চের আহ্বায়ক লালসিং ভুজেল বলেন, আলিপুরদুয়ার জেলার বনবস্তিগুলিতে প্রশাসন একশো দিনের কাজ করেছে ঠিকই। কিন্তু চোখে পড়ার মতো তেমন কোনও কাজ হয়নি। তাই কীভাবে এই কাজে আলিপুরদুয়ার রাজ্যসেরা হয়েছে, তা নিয়ে যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে।